শিরোনাম
কাজী জালাল উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক মাওলানা এনামুল হকের দাফন সম্পন্ন সংসদীয় কমিটিতে আলোচনায় সওজ সিলেট জোনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী ‌'সাবিনার মতো আর কোনো নারীর জীবনে এমন ঘটনা ঘটুক-আমরা তা চাই না' ছাতকের জহিরপুরে মাছ ধরা নিয়ে সংঘর্ষে প্রাণ গেল একজনের শাবির সাথে সোনালী ব্যাংক এর ১০০ কোটি টাকার সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত দক্ষিণ সুরমায় সালিশ ব্যক্তিত্ব খুনের ঘটনায় মহিলা গ্রেফতার এবারও শাহপরান (রহ.) মাজারের ওরসও হচ্ছে না দুবাই এক্সপো শুরু ১ অক্টোবর : ভিজিটরদের অনন্য অভিজ্ঞতা দিতে প্রস্তুত এমিরেটস প্যাভিলিয়ন ‘ফজরের নামাজ পড়ে তারা ট্রাকের সামনে গল্প করছিলেন’ দক্ষিণ সুরমায় সালিশ ব্যক্তিত্বের লাশ উদ্ধার
English

সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২১ ০৪:২৬ পূর্বাহ্ন



সেপ্টেম্বর / ২৭ / ২০২১


সিলেটের সকাল রিপোর্ট

আপডেটের : সেপ্টেম্বর / ২৭ / ২০২১

না ফেরার দেশে ঢাবি থেকে কোম্পানীগঞ্জের প্রথম মহিলা গ্র্যাজুয়েট তৈয়বুন্নেছা খাতুন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) থেকে কোম্পানীগঞ্জের প্রথম মহিলা গ্র্যাজুয়েট তৈয়বুন্নেছা খাতুন আর নেই। শুক্রবার সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় নগরীর মাউন্ট এডোরা হাসপাতালে বার্ধক্যজনিত কারণে তিনি ইন্তেকাল করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৮ বছর। তিনি ভাই-বোনসহ অনেক গুণগ্রাহী  ও আত্মীয়-স্বজন রেখে গেছেন।

তার অনুজ সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মোহাম্মদ আলী দুলাল জানান, মরহুমার নামাজে জানাজা আজ শনিবার সকাল ১১টায় ভাটরাই ঈদগাহ মাঠে অনুষ্ঠিত হবে। জানাজাশেষে তাকে পারিবারিক গোরস্থানে দাফন করা হবে। 

তৈয়বুন্নেছা ১৯৪৫ সালের ৩১ মে সিলেটের কোম্পানীগঞ্জের ভাটরাই গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা ছিলেন মৌলভী মো: হোসেন আলী (দেওবন্দ) উত্তীর্ণ ও মাতা আফতাবান বিবি।  তিনি ছিলেন ৮ ভাইবোনের মধ্যে দ্বিতীয়। 

সেখানকার ভাটরাই উচ্চ বিদ্যালয় ষষ্ট শ্রেণী পাস করার পর তিনি ছাতক চন্দ্রনাথ গার্লস হাইস্কুলে ভর্তি হন। ১৯৬২ সালে সেখান থেকে এসএসসি পাসের পর ১৯৬৪ সালে টাঙ্গাইলের ভারতেশ্বরী হোমস থেকে এইচএসসি এবং ১৯৬৮ সালে রাজধানীর ইডেন মহিলা কলেজ থেকে ইতিহাস (সম্মান) ডিগ্রী অর্জন করেন। ১৯৬৯ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করেন। তিনি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান ও বাংলা পিডিয়ার চেয়ারম্যান অধ্যাপক সিরাজুল ইসলামের খুবই স্নেহধন্য। অকৃতদার তৈয়বুন্নেছা প্রথমে ছাতকের চন্দ্রনাথ হাইস্কুলে প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগ দেন। পরবর্তীতে তিনি ফেঞ্চুগঞ্জ সারকারখানা স্কুলে সিনিয়র শিক্ষক হিসেবে যোগ দেন। সেখান থেকেই তিনি অবসর নেন।


সিলেট