অক্টোবর ২৫, ২০২১ ০৫:০৯ অপরাহ্ন



অক্টোবর / ২৫ / ২০২১


বিয়ানীবাজার প্রতিনিধি

আপডেটের : অক্টোবর / ২৫ / ২০২১

বিয়ানীবাজারে ছাত্রকে বলাৎকারের অভিযোগে মাদ্রাসা শিক্ষক গ্রেফতার

 ছাত্র বলাৎকারের ঘটনায় সিলেটের বিয়ানীবাজার পৌর এলাকার বৃহত্তর ফতেহপুর হযরত হায়দর শাহ (রহঃ) হাফিজিয়া মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক হাফিজ আব্দুর রহিম (৫৫) গ্রেফতার হয়েছেন। বুধবার দুপুরে বিজিবি সদস্যরা তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে রাত ৮টায় বিয়ানীবাজার থানায় হস্তান্তর করেন।
সূত্র জানায়, বিয়ানীবাজার বিজিবি ৫২ ব্যাটালিয়নের এক সদস্যের পুত্র হযরত হায়দর (রহঃ) হাফিজিয়া মাদ্রাসায় (১৫) হিফজ বিভাগের শিক্ষার্থী। সম্প্রতি ওই ছাত্র মাদ্রাসা যাওয়া বন্ধ করে দেয়। জিজ্ঞাসাবাদে সে বলাৎকারের বিষয়টি তার পিতাকে অবহিত করে। পরে বিষয়টি ৫২ ব্যাটলিয়নের দায়িত্বশীলরা অবগত হলে বুধবার দুপুরে মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক হাফিজ আব্দুর রহিমকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে সদর দপ্তরে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে ঘটনার সত্যতা ও ভুক্তভোগী ছাত্রের মৌখিক জবানবন্দী নেয়ার পর রাতে তাকে বিয়ানীবাজার থানায় হস্তান্তর করা হয়।
এ বিষয়ে বিয়ানীবাজার থানার অফিসার ইনচার্জ হিল্লোল রায় বলেন, অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষককে বিজিবির পক্ষ থেকে থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগীর পিতা থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার তাকে আদালতে প্রেরণ করা হবে।
এদিকে, মঙ্গলবার দিবাগত রাতে মাদ্রাসা ছাত্র বলাৎকার ঘটনার অভিযোগ পেয়ে পৌর কিচেন মার্কেটে এলাকাবাসীর এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ সংবাদ পেয়ে মাদ্রাসার কিছু ছাত্র উত্তেজিত হয়ে রাত ১২টায় সাবেক পৌর প্রশাসক তফজ্জুল হোসেনের ব্যক্তিগত অফিসে হামলা ও ভাঙচুর করে। এ ঘটনায় তফজ্জুল হোসেন বাদি হয়ে ২ জনকে অভিযুক্ত করে থানায় মামলা করেন। অভিযুক্তরা হলেন, প্রধান শিক্ষক হাফিজ আব্দুর রহিম ও তার বডিগার্ড রনি। তবে, এ মামলা নথিভুক্ত হওয়ার পরিবর্তে বলাৎকারের পক্ষে আপোষ মীমাংসার চেষ্টা করেন অনেকেই। শেষ পর্যন্ত বিজিবি সদস্যদের হাতে পাকড়াও হন অঅভিযুক্ত শিক্ষক আব্দুর রহিম।

আইন-আদালত