English

অক্টোবর ২৫, ২০২১ ০৩:৫৭ অপরাহ্ন



অক্টোবর / ২৫ / ২০২১


সিলেটের সকাল ডেস্ক:

আপডেটের : অক্টোবর / ২৫ / ২০২১

আফগানিস্তানে শিয়া মসজিদে বোমা বিস্ফোরণে নিহত ৫০


আফগানিস্তানের উত্তর-পূর্বের কুন্দুজ প্রদেশে একটি শিয়া মসজিদে বোমা হামলায় কমপক্ষে ৫০ জন নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের আরও কয়েকজন আহত হয়েছেন। ধারণা করা হচ্ছে তালেবানদের আফগানিস্তান দখলের পরিপ্রেক্ষিতে আফগানিস্তানকে আরও অস্থিতিশীল করার জন্য এই বোমা হামলার ঘটনা ঘটেছে।


শুক্রবারে (৮ অক্টোবর) হওয়া এই বোমা হামলাটিকে মার্কিন বাহিনী আফগানিস্তান ছাড়ার পর দেশটিতে সংঘটিত সবচেয়ে রক্তাক্ত হামলা হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।


কুন্দুজ প্রাদেশিক হাসপাতালের একটি মেডিকেল সূত্র জানায়, সেখানে ৩৫ জন মৃত এবং ৫০ জনেরও বেশি আহত ব্যক্তিকে নেওয়া হয়েছে। এছাড়া, ডক্টরস উইথআউট বর্ডারস হাসপাতালের একজন কর্মী জানান, সেখানে ১৫ জন নিহত এবং অনেক হতাহত ব্যক্তিকে নেওয়া হয়েছে।


শহরের এমএসএফ হাসপাতালে একজন আন্তর্জাতিক সহায়তা কর্মী এএফপিকে বলেন, মৃতের সংখ্যা বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।


তালেবান মুখপাত্র জাবিহুল্লাহ মুজাহিদ জানান, কুন্দুজের এক শিয়া মসজিদে বিস্ফোরণের সময় বিপুল সংখ্যক মানুষ নিহত ও আহত হয়েছেন।


তাৎক্ষণিকভাবে কেউ এই ঘটনার দায় স্বীকার করেনি। তবে অতীতে তালেবানদের চির প্রতিদ্বন্দ্বী আইএস-কের দিকে সন্দেহের তীর উঠছে।


কুন্দুজের বাসিন্দারা এএফপিকে জানান, শুক্রবারের নামাজের সময় একটি শিয়া মসজিদে এই বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।


কুন্দুজের প্রাদেশিক হাসপাতালে চিকিৎসকদের রক্তদানের প্রয়োজন আছে কি না তা জানতে এসে জালমাই অলোকজাই নামের এক স্থানীয় ব্যবসায়ী আছে বোমা বিস্ফোরণের সময়ের ভয়াবহ দৃশ্য বর্ণনা করে বলেন, "মৃতদের বহন করার জন্য অ্যাম্বুলেন্সগুলো ঘটনাস্থলে যাচ্ছিল।"


তিনি আরও বলেন, "শত শত মানুষ হাসপাতালের প্রধান ফটকে জড়ো হয়ে তাদের স্বজনদের জন্য কান্নাকাটি করছে। কিন্তু সশস্ত্র তালেবানরা আরেকটি বিস্ফোরণের আশঙ্কা এড়াতে জনসমাগম রোধের চেষ্টা করছে।"


আমিনুল্লাহ নামের একজন প্রত্যক্ষদর্শীর ভাই হামলার সময়ে মসজিদে ছিলেন। তিনি এএফপিকে বলেন, "বিস্ফোরণের শব্দ শোনার পর আমি আমার ভাইকে ফোন করলে সে ফোন ধরেনি। আমি মসজিদের দিকে গিয়ে দেখি আমার ভাই আহত হয়ে অজ্ঞান অবস্থায় পড়ে রয়েছে। সঙ্গে সঙ্গে আমরা তাকে এমএসএফ হাসপাতালে নিয়ে যাই।"


কুন্দুজের এক শিক্ষিকা এএফপিকে তার বাড়ির কাছে হওয়া বিস্ফোরণের ঘটনাটিকে ভয়ঙ্কর বলে উল্লেখ করেন। এতে তার বেশ কয়েকজন প্রতিবেশী নিহত হয়েছে বলেও জানান তিনি।


আফগানিস্তানের জনসংখ্যার মধ্যে প্রায় ২০% শিয়া মুসলিম। প্রায়শই তারা সুন্নি চরমপন্থিদের লক্ষ্যবস্তু হয়ে হিংসাত্মক হামলার শিকার হয়েছে। ২০১৭ সালের অক্টোবরে কাবুলের পশ্চিমের শিয়া মসজিদে আইএসের আত্মঘাতী বোমা হামলায় ৫৬ জন নিহত এবং ৫৫ জন আহত হয়। এছাড়া, এ বছরের মে মাসে কাবুলের একটি স্কুলের বাইরে ধারাবাহিক বোমা হামলায় কমপক্ষে ৮৫ জন নিহত হয়,যার মধ্যে বেশিরভাগই ছিল তরুণী। হাজারা সম্প্রদায়ের উপর হওয়া এই হামলায় ৩০০ জনেরও বেশি আহত হয়।

আন্তর্জাতিক