সম্পদে কালাম, শিক্ষায় ন্যান্সি এগিয়ে

ছাতক পৌরসভার মেয়র প্রার্থীদের হলফনামা পর্যালোচনা

কাউসার চৌধুরী::আসন্ন ছাতক পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী প্রার্থীদের মধ্যে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো: আবুল কালাম চৌধুরী সম্পদের দিক দিয়ে এগিয়ে। আর বিএনপি প্রার্থী রাশিদা বেগম ন্যান্সির এগিয়ে শিক্ষায়।
নির্বাচন কমিশনে জমা দেয়া হলফনামা পর্যালোচনায় দেখা যায়, আওয়ামী লীগ প্রার্থীর আয় ৪ কোটি ৩১ লাখ ৫৮ হাজার ৮৫২ টাকা। বিএনপি মনোনীত প্রার্থী রাশিদা বেগম ন্যান্সির কোন আয় নেই। তবে, তিনি ২৫ ভরি স্বর্ণের মালিক। দু’প্রার্থী পৌরসভার বাগবাড়ীর বাসিন্দা।

ছাতক পৌরসভা নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার ও সুনামগঞ্জ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ মুরাদ উদ্দিন হাওলাদার জানান, নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার সময় হলফনামাও জমা দিতে হয়। প্রার্থীর স্বাক্ষরিত হলফনামাটি নোটারী পাবলিক করে দিতে হয়। হলফনামায় কোন মিথ্যা তথ্য দেয়া হলে ওই প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিলের বিধান রয়েছে।
নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, হলফনামার দেয়া তথ্য মতে, আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো: আবুল কালাম চৌধুরী ছাতক পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের বাগবাড়ীর মৃত মো: আরজ মিয়া চৌধুরীর পুত্র। তিনি এইচ.এস.সি পাশ। অতীতে তিনি ৮ মামলার আসামী ছিলেন। বিভিন্ন সময়ে এসকল মামলার আসামী হন তিনি। তবে, তিনি ২ মামলা থেকে অব্যাহতি ও ২ মামলা থেকে বেকসুর খালাস পান। ৩টি মামলা প্রত্যাহার করা হয় এবং আরেকটি নিষ্পত্তি হয়। বর্তমানে তিনি কোন মামলার আসামী নন। পেশায় ব্যবসায়ী হলেও তিনি সম্মানী ভাতা, কৃষি, এ.কে ফিলিং এন্ড সিএনজি স্টেশন, অন্যান্য সূত্র, ঠিকাদারী ও মৎস্য চাষ হতে আয় করেন। এর মধ্যে কৃষি খাত থেকে বার্ষিক ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা, ব্যবসা থেকে ১ কোটি ১০ লাখ ৯৪ হাজার ২১২ টাকা, শেয়ার-সঞ্চয়পত্র/ব্যাংক আমানত থেকে ডিডিএস ৩টি থেকে ১ কোটি ২৬ লাখ টাকা ও এম.এস.ডি.এস ২টি থেকে ১ কোটি ১৮ লাখ ২৩ হাজার ৮২৯টাকা, মেয়রের সম্মানী ভাতা থেকে ৪ লাখ ৮০ হাজার টাকা ও এ.বি ব্যাংক ডিডিএস থেকে ৭০ লাখ ৮১১ টাকা বার্ষিক আয় করেন।
হলফনামা পর্যালোচনা করে দেখা যায়, অস্থাবর সম্পদ রয়েছে নগদ ৩ লাখ টাকা, ব্যাংকে জমা ২ কোটি ৭৫ লাখ ১০ হাজার ২৫৯ টাকা, ১টি টয়োটা প্রিসিও কার (ঢাকা মেট্টো-গ-৩৯-৯৪৮২) ও ২টি ট্রাক্টর যা ২০২০-২০২১ কর বছরের আয়কর রিটার্নে প্রদর্শন করা হয়েছে। এছাড়াও ১টি পিস্তল ও ১টি বন্দুক রয়েছে।
স্থাবর সম্পদ রয়েছে, নিজ নামে ১২০ দশমিক ৩০ শতক কৃষি জমি, ২৫৫ দশমিক ৪৭ শতক অকৃষি জমি, সি.এন.জি স্টেশন ও ২টি পুকুর। যৌথ মালিকানায় রয়েছে ৭ তলা বিল্ডিং ও ১টি ফ্ল্যাট। এ.বি ব্যাংকে তার ৪৬ লাখ ৯১ হাজার ৬৬৮ টাকা সিসি ঋণ রয়েছে বলে হলফনামায় উল্লেখ করা হয়েছে। মো: আবুল কালাম চৌধুরী ছাতক পৌরসভার বর্তমান মেয়র ও সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক।
নির্বাচন কমিশন সূত্র জানায়, বিএনপির প্রার্থী রাশিদা বেগম ন্যান্সির শিক্ষাগত যোগ্যতা এম.এস.এস। তিনি ছাতক পৌরসভার বাগবাড়ীর রজনু আহমদ’র স্ত্রী। তার বিরুদ্ধে কোন মামলা নেই। পেশায় গৃহিনী রাশিদা বেগমের কোন বার্ষিক আয় নেই। অস্থাবর সম্পদ হিসেবে রয়েছে নিজ নামে নগদ ৬০ হাজার টাকা, ব্যাংকে জমা ৬০ হাজার টাকা, ২৫ ভরি স্বর্ণালংকার, ফ্রিজ, ফ্যান, খাট, চেয়ার ও টেবিল। তবে, তার কোন স্থাবর সম্পদ নেই। তার কোন দায়-দেনাও নেই বলে হলফনামায় উল্লেখ করেছেন। বিএনপির প্রার্থী রাশিদা দলের সক্রিয় নেত্রী। তবে বর্তমানে দলের কোন পদে নেই বলে স্থানীয় সূত্র জানিয়েছে।
আগামী ১৬ জানুয়ারি শনিবার ‘ক’ শ্রেণির ছাতক পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এবার মোট ভোটার ৩০ হাজার ২৭৮ জন। পুরুষ ভোটার ১৫ হাজার ২৭২ জন ও ১৫ হাজার ৬জন হলেন মহিলা ভোটার। ১৯টি ভোট কেন্দ্রে ৭৭টি ভোট কম রয়েছে বলে নির্বাচন কমিশন সূত্র জানিয়েছে।

শেয়ার করুন