ডিভি লটারী বাংলাদেশীদের জন্য প্রযোজ্য নয় : এটর্নী নাজমুল

করোনায় সুস্থ ৫ লাখের কাছাকাছি

এমদাদ চৌধুরী দীপু,(২৯মে,২০২০ নিউইয়র্ক):ডিভি লটারী ২০২১ বাংলাদেশীদের জন্য প্রযোজ্য কী না এ বিষয়ে বিভ্রান্তি চলছে। বাংলাদেশ থেকে ডিভি লটারীর ফরম পূরণ করছেন অনেকে। এদিকে যুক্তরাষ্ট্র থেকে বিভিন্ন সূত্র দাবী করছে-এটি বাংলাদেশের জন্য প্রযোজ্য নয়।
নিউইয়র্কে কাজ করেন বাংলাদেশী এটর্নী নাজমুল আলম বলেছেন, ডিভি লটারী বাংলাদেশীদের জন্য নয়। তাই, এ ব্যাপারে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদেও প্রতি আহŸান জানিয়েছেন তিনি। ২৮ মে রাতে নিউইয়র্কে টাইম টেলিভিশনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এ তথ্য প্রকাশ করেন এটর্নী নাজমুল আলম। অনুষ্ঠানে ইমিগ্রেশন নিয়ে আরো কিছু তথ্য দেন এটর্নী নাজমুল আলম। তিনি বলেন, বাংলাদেশে বর্তমানে ভিসা সেন্টারের সব কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। এর কারণ দূতাবাসের বেশীরভাগ স্টাফ যুক্তরাষ্ট্রে চলে এসেছেন। বাংলাদেশে ভিসা সেন্টার কবে চালু হবে সেটি বাংলাদেশ সরকারের উপর নির্ভর করবে বলে জানান তিনি। বাংলাদেশ যখন বলবে এখন নিরাপদ বাংলাদেশ করোনা মহামারী নিয়ে তখন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানরত বাংলাদেশ ভিসা সেন্টারের স্টাফরা ফিরে যাবেন।
এদিকে ন্যাশনাল ভিসা সেন্টার খোলা রয়েছে, অনলাইনে সব কার্যক্রম চলছে বলে জানান এটর্নী নাজমুল আলম। জরুরী চিঠি প্রেরণ করা যাচ্ছে এবং জবাব দিচ্ছে ভিসা সেন্টার। এদিকে ১৫ জুন পর্যন্ত ইমিগ্রেশন কোর্ট বন্ধ রয়েছে এমন তথ্য দিয়ে জানানো হয়, ১৫ জুনের পরে যাদের মামলা অপেক্ষমান আছে ; তারা আইনী সেবা পাবেন।

তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র ২৫ হাজার নার্সকে গ্রিনকার্ড প্রদান করবে। তাই বাংলাদেশীদের এই সুযোগ নেয়ার আহŸান জানান তিনি।
এদিকে, এখনো নিয়ন্ত্রণে নেই যুক্তরাষ্ট্রের করোনা পরিস্থিতি। যুক্তরাষ্ট্রে ওয়াল্ডোমেটারের তথ্যমতে, ১১২৩ জনের মৃত্যু হয়েছে গত ২৪ ঘন্টায়। বর্তমানে মৃতের সংখ্যা এক লাখ ৩ হাজার ৩৩০ জন। শনাক্ত ১৭ লাখ ৬৮ হাজারের উপরে। নতুন করে শনাক্ত ২৩ হাজারের উপরে। এদিকে একদিনে ৯ হাজার সুস্থ হয়েছেন। মোট সুস্থ হওয়ার সংখ্যা ৪লাখ ৯৮ হাজারের উপরে। অর্থাৎ ৫ লাখ ছুঁই ছুঁই।
নিউইয়র্কে সামগ্রিক পরিস্থিতি উন্নতির ধারায় রয়েছে। ২৪ ঘন্টায় মারা গেছেন মাত্র ১০০ জন। শনাক্ত হয়েছেন ২হাজার । নানা সংখ্যায় বেশীরভাগ রাজ্যে মৃত্যু অব্যাহত রয়েছে। বেশী মৃত্যু নিউজার্সী,এ্যালিনইস,ম্যাসাচুসেট,ম্যারিল্যান্ড অঙ্গরাজ্যে। নিউজার্সী,এলিয়ন্স,ক্যালিফোর্নিয়ায় শনাক্ত এক লাখের উপরে রয়েছে। নিউইয়র্কে মোট শনাক্ত প্রায় ৩ লাখ ৭৬ হাজারের উপরে। মোট মৃত্যু ২৯ হাজার ৬৫৩ জন। সুস্থ ৭৫ হাজারের উপরে। এছাড়া, মেক্সিকোতে মৃত্যু বৃদ্ধি যুক্তরাষ্ট্রের প্রান্তিক অঙ্গরাজ্যেগুলোর উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। অনেক অঙ্গরাজ্যে মেক্সিকানরা শনাক্ত হচ্ছেন। হাসপাতালে রোগী বাড়ছে।
বেকারত্ব বাড়ছে,বাড়ছে পর্যটন খাতে লোকসানসহ বিভিন্ন সেক্টরে লোকসান। অনেক বড় বড় প্রতিষ্ঠান দেউলিয়া হয়ে যাচ্ছে। টেস্টিংকে গুরুত্ব দিয়ে সব অঙ্গরাজ্যে বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে টেস্টিং সেন্টার। বিভিন্ন ফার্মেসীকে টেস্টিং এর অনুমতি দেয়া হচ্ছে। ইতিমধ্যে বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে ধাপে ধাপে রিওপেন করা হচ্ছে। লকডাউন তুলে দেয়া হয়েছিল এমন অনেক রাজ্যে আবার নাজুক পরিস্থিতি করোনার। আনএম্পøয়মেন্ট সুবিধার কারণে অনেক প্রতিষ্ঠান লোকবল সংকটে পড়েছে। সেখানে বিভিন্ন অঙ্গরাজ্য অর্থনৈতিক সংকটও দেখা দিয়েছে।

শেয়ার করুন