বিদ্যুৎ-জ্বালানি সংকটে হটলাইনে থাকবেন ২৮ কর্মকর্তা

সিলেটের সকাল ডেস্ক ।। জরুরি পরিস্থিতি মোকাবিলায় ২৮ কর্মকর্তাকে ফোকাল পয়েন্টে রেখে বিদ্যুৎ জ্বালানি মন্ত্রণালয় তালিকা প্রকাশ করেছে। বিদ্যুৎ বিভাগের ১৪ জন এবং জ্বালানি বিভাগের ১৪ জন কর্মকর্তাকে এই ফোকাল পয়েন্টে রাখা হয়েছে। দেওয়া হয়েছে তাদের মোবাইল নম্বর। বর্তমান প্রেক্ষাপটে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সংক্রান্ত উদ্ভূত যেকোনও পরিস্থিতি মোকাবিলায় তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা যাবে বলে মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়।

বিদ্যুৎ বিভাগ জানায়, ফোকাল পয়েন্ট কর্মকর্তাদের মধ্যে আছেন বিদ্যুৎ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (সমন্বয়) একেএম হুমায়ুন কবীর, (মোবাইল নম্বর ০১৭৭৭-১৯০৯১৭), যুগ্ম সচিব (প্রশাসন) রেজওয়ানুর রহমান (০১৭১১-৯০৫৮১৯), বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) চিফ স্টাফ অফিসার টু চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান (০১৮১৯-২৩৭০৭১), কোম্পানি সচিব সাইফুল ইসলাম আজাদ (০১৭৫৫-৫২৭৯৩৮)।

দেশের সবচেয়ে বেশি গ্রাহক যাদের তারা হচ্ছে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (বিআরইবি)। এ কারণে বিআরইবির পরিচালক (ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড অপারেশন) মো. মুকুল হোসেন (০১৭১১-৪৪০৭৭৪) এবং মো. আব্দুল হাইকে (০১৭৬৯-৯২৪৩৩৫) ফোকাল পয়েন্ট কর্মকর্তা হিসেবে রাখা হয়েছে।

এছাড়া ঢাকার দুই বিতরণ কোম্পানির মধ্যে ঢাকা বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানি (ডিপিডিসি) থেকে দুইজন এবং ঢাকা বিদ্যুৎ সরবরাহ কোম্পানি (ডেসকো) থেকে দুইজনকে ফোকাল কর্মকর্তা রাখা হয়েছে। এরমধ্যে ডিপিডিসি থেকে নির্বাহী পরিচালক (প্রশাসন ও মানবসম্পদ) জয়ন্ত কুমার সিকদার (০১৭৩০-৩৩৫০২৫) এবং নির্বাহী পরিচালক (প্রশাসন) এটিএম হারুন অর রশিদ (০১৭৩০-৩৩৫০৭৯) এবং ডেসকোর প্রধান প্রকৌশলী (ইস্ট জোন) একেএম মহিউদ্দিন (০১৭১৩-০২৪০৫৮) এবং প্রধান প্রকৌশলী (ওয়েস্ট জোন) মো. জাকির হোসেন (০১৭১৩-০৯০৫৯০)।

এছাড়া নর্দান ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানি লিমিটেডের (নেসকো) প্রধান প্রকৌশলী মো. আব্দুর রশীদ (০১৭৫৫-৫৮২৩০০) এস এম রেজাউল করিম (০১৭১৫-০৪১২৪০), ওয়েস্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির নির্বাহী প্রকৌশলী (কারিগরি) মো. রুহুল আমীন (০১৭১১-২৯৭৯৬৯), নির্বাহী প্রকৌশলী (সিস্টেম অ্যানালিস্ট) মো. মোশাররফ হোসেন (০১৭০০-৭০৯৭১৬)-কে ফোকাল কর্মকর্তা করা হয়েছে।

এরমধ্যে ডিপিডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক বিকাশ দেওয়ান বলেন, ফোকাল পয়েন্ট ছাড়াও ডিপিডিসির কলসেন্টারেও ফোন দিয়ে সমস্যার বিষয়ে কথা বলতে পারবেন গ্রাহকরা। কল সেন্টার নম্বর হচ্ছে ১১১১৬।

জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগেরও ১৪ জন কর্মকর্তাকে ফোকাল পয়েন্টে রাখা হয়েছে। এরমধ্যে আছেন জ্বালানি বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. মোস্তফা কামাল (০১৭১১-৯৪২০২২), উপসচিব মোছাম্মাৎ ফারহানা রহমান (০১৭১২-৮৭২০৭৩), গ্যাসের জন্য তিতাস গ্যাস কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলী মো. আল মামুন (০১৭১৩-০১২৭৯৪), মহাব্যবস্থাপক মো. মনির হোসেন খান (০১৯৩৯-৯২১০২০), কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক খায়েজ আহমেদ মজুমদার (০১৭৩০-৭২৮৪২৪), মহাব্যবস্থাপক মো. সারওয়ার হোসেন (০১৭৩০-৭২৮৪১৬), পশ্চিমাঞ্চল গ্যাস কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আব্দুল পাটওয়ারী (০১৭১৩-০১৭৪০১), মহাব্যবস্থাপক মো. ইমাম উদ্দিন শেখ (০১৭১১-৮০০৫২১), বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. শাহিনুর ইসলাম (০১৭১১-৮১৯৩১১), মহাপরিচালক আবুল বাসার (০১৭৭০-৭৯১৪৩৭), জালালাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন অ্যান্ড ট্রান্সমিশন কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. শরিফুল ইসলাম (০১৭৩০-০৯৬০৯৬), মহাপরিচালক (অপারেশন ) আব্দুল মমিন (০১৭৩০-৩১২০৭৩)। এছাড়া জ্বালানি তেলের জন্য বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের পরিচালক (অপারেশন) সৈয়দ মেহেদি হাসান (০১৭৫৫-৫৮৭৬২১), কোম্পানি সচিব কাজী মোহম্মদ হাসান (০১৭৫৫-৫৮৭৬২৪)-কে ফোকাল পয়েন্ট কর্মকর্তা হিসেবে রাখা হয়েছে।

বিদ্যুৎ সচিব ড. সুলতান আহমেদ বলেন, ফোকাল পয়েন্ট কর্মকর্তাদের মধ্যে বিভিন্ন লেভেলের কর্মকর্তাদের রাখা হয়েছে। এরপরে রয়েছে অনেক টিম আছে, যারা সত্যিকার অর্থেই সার্ভিস দেবে। এদের মধ্যে কোনও একটি পয়েন্টে যোগাযোগ করলেই সার্ভিস পাবেন গ্রাহকরা। যেকোনও সার্ভিস তারা পাবেন। তিনি বলেন, নিচের স্তরে যে টিমগুলো আছে, তাদের কাজ মনিটর করাও এই ফোকাল পয়েন্ট কর্মকর্তাদের কাজ। সংশ্লিষ্টরা কাজ করছেন কিনা দেখবেন তারা। যেকোনও গ্রাহক ফোকাল পয়েন্ট কর্মকর্তাকে ফোন দিয়ে তাদের সমস্যার কথা জানাতে পারবেন। একইরকম সার্ভিস দেবেন জ্বালানি বিভাগের কর্মকর্তারাও। প্রয়োজনে গ্রাহক তাদেরও ফোন দিতে পারবেন।

শেয়ার করুন