কোম্পানীগঞ্জে কোয়ারেন্টাইন না মানায় প্রবাসীকে অর্থদন্ড, বিয়ে পন্ড

 

বিয়ে পন্ড করে দিলেন ইউএনও বিজেন ব্যানার্জী

কোম্পানীগঞ্জ প্রতিনিধি : করোনার প্রভাব দেখিয়ে কোম্পানীগঞ্জে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য বাড়তি দামে বিক্রি করায় দুই প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা করেছে মোবাইল কোর্ট। একই সাথে বাজার মনিটরিং কার্যক্রম জোরদার করা হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের পাশাপাশি থানা পুলিশের পক্ষ থেকেও বাজার মনিটরিং করা হচ্ছে। লোক সমাগম ঘটিয়ে বিয়ের আয়োজন করায় একটি বিয়ের আসর পÐ করে দেয় মোবাইল কোর্ট। এ ঘটনায় কনের অভিভাবককে জরিমানা করা হয়। হোম কোয়ারেন্টাইন না মানায় দুবাই ফেরত এক প্রবাসীকে অর্থদন্ড দেওয়া হয়। শুক্রবার বিকেলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুমন আচার্যের নেতৃত্বে মোবাইল কোর্টের এ অভিযান পরিচালিত হয়।
জানা গেছে, দাম বৃদ্ধির গুজব ছড়িয়ে বেশি দামে বিক্রির অভিযোগে শুক্রবার উপজেলার বিভিন্ন বাজারে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়। এ সময় বেশি দামে পেঁয়াজ বিক্রি করায় টুকেরবাজারের নাজমুল স্টোরকে ১০ হাজার টাকা ও পাড়–য়াবাজারে জসিম স্টোরকে ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ড করা হয়। মোবাইল কোর্ট পরিচালনার সময় পাড়–য়া বাজারে ম্যাজিস্ট্রেট এর উপস্থিতিতে ৩৫ টাকা কেজি দরে ক্রেতাদের কাছে পেঁয়াজ বিক্রি করা হয়। এসময় ক্রেতারা লাইন ধরে পেঁয়াজ কেনেন।
এদিকে, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে হোম কোয়ারেন্টাইনের নির্দেশ না মানায় টুকেরগাঁও গ্রামের দুবাই ফেরত এক পরিবারকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করে মোবাইল কোর্ট।

মোবাইল কোর্টের অভিযান

অপরদিকে, করোনা শঙ্কার মধ্যেই লোক সমাগম ঘটিয়ে শিলেরভাঙ্গা গ্রামে একটি বিয়ের আয়োজন করায় তা পÐ করে দেয়া হয়। এসময় সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করার দায়ে কনের অভিভাবককে ১০ হাজার টাকা জরিমানাও করা হয়।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুমন আচার্য জানান, উপজেলার সকল বাজার মনিটরিং করা হচ্ছে। করোনার প্রভাব দেখিয়ে অতিরিক্ত মূল্যে পণ্য বিক্রির অভিযোগে শুক্রবার দুটি প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা করা হয়। এর আগে বৃহস্পতিবার দুই প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা করা হয়। ইউএনও জানান, হোম কোয়ারেন্টাইনের নির্দেশ না মানায় দুবাই ফেরত এক পরিবারকে দশ হাজার টাকা এবং লোক সমাগম ঘটিয়ে বিয়ের আয়োজন করায় কনের অভিভাবককে দশ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

শেয়ার করুন