টানা তিন কার্যদিবস পর সূচকের বড় পতন

সিলেটের সকাল ডেস্ক ।। করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে সরকার ঘোষিত লকডাউনের চতুর্থদিন বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) সূচকের বড় পতনের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে পুঁজিবাজারে লেনদেন। এদিন দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ও অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) লেনদেন কমেছে।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, বৃহস্পতিবার ডিএসই প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স ৮২ পয়েন্ট কমে পাঁচ হাজার ২৫৪ পয়েন্টে অবস্থান করছে। অন্য দুই সূচকের মধ্যে ডিএসইর শরীয়াহ সূচক ১৬ পয়েন্ট এবং ডিএসই-৩০ সূচক ২০ পয়েন্ট কমে যথাক্রমে ১১৯৭ ও ১৯৯০ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

বৃহস্পতিবার ডিএসইতে ৪৭৫ কোটি ৮৭ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছে। যা আগের কার্যদিবসের চেয়ে ডিএসইতে ১০৭ কোটি টাকার লেনদেন কমেছে। আগের দিন ডিএসইতে ৫৮২ কোটি ৫২ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছিল।

ডিএসইতে এদিন ৩৪৬টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিটের লেনদেন হয়েছে। এগুলোর মধ্যে দাম বেড়েছে ৪৭টি কোম্পানির, কমেছে ২৬৪টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৫টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিটের দর।

লেনদেনের শীর্ষে থাকা ১০ প্রতিষ্ঠান হলো-বেক্সিমকো লিমিটেড, রবি, এশিয়া প্যাসিফিক, প্রভাতী ইন্স্যুরেন্স, পূরবী ইন্স্যুরেন্স, অগ্রণী ইন্স্যুরেন্স, সোনারবাংলা ইন্স্যুরেন্স, লংকাবাংলা, দেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্স ও বেক্সিমকো ফার্মা।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই এদিন ২০৩ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১৫ হাজার ২৩১ পয়েন্টে। এদিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ২১৭টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ৪১টির, কমেছে ১৫৬টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২০টির কোম্পানির শেয়ার দর।

বৃহস্পতিবার সিএসইতে ২৪ কোটি ৬০ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। যা আগের দিনের চেয়ে ৬ কোটি টাকা কম। আগের দিন সিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ৩০ কোটি ৬৫ লাখ টাকার।

শেয়ার করুন