সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতদের পরিচয় মিলেছে : উইমেন্স মেডিকেল কলেজের শিক্ষকের মৃত্যুতে শোকের ছায়া

সন্তান কোলে নিহত চিকিৎসক ইমরান

সিলেটের সকাল রিপোর্ট : সিলেট- ঢাকা মহাসড়কের রশিদপুরে শুক্রবার সকালে এনা পরিবহন ও লন্ডন এক্সপ্রেসের মুখোমুখি সংঘর্ষে ৭ জনের মধ্যে পরিচয় পাওয়া গেছে। দুর্ঘটনায় সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের শিক্ষক ডা: ইমরান খান রুমেল (৪৮)-মারা গেছেন। চুয়াডাঙ্গা জেলার আমদবাড়িয়া গ্রামের ডা: আমজাদ খানের ছেলে ডা: ইমরানের স্ত্রীও সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন। তাকে ওসমানী হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।উইমেন্স মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের ডাইরেক্টর এমদাদ হোসেন চৌধুরী তাদের প্রতিষ্ঠানের চিকিৎসকের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
নিহত অন্যরা হলেন, এনা গাড়ির চালক, সিলেটের ওসমানী নগর উপজেলার ধরখা গ্রামের মৃত মানিক মিয়ার পুত্র মো: মঞ্জুর আলী (৩৮),এনা গাড়ির হেলপার একই গ্রামের মৃত মনসুর আলীর পুত্র জাহাঙ্গীর হোসেন (৩০), সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার মিঠাভরা গ্রামের মৃত আলিউর খানের পুত্র সালমান খান (২৮), ব্রাক্ষণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার আলী হায়দর মেম্বারের বাড়ির মো: নুরুল আমিন (৫৫), ঢাকা ওয়ারির আব্দুল খালেকের পুত্র নাদিম আহমদ সাগর (২০) ও সিলেট নগরীর আখালিয়া নতুন বাজার ৬০ নম্বর বাসার আব্দুর রশিদের পুত্র শাহ কামাল(৪৫)।
চিকিৎসকের মৃত্যুর বিষয়টি সোস্যাল মিডিয়ায়ও ভাইরাল হয়েছে। এ কারণে সিলেটের চিকিৎসক সমাজে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।
সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (মিডিয়া) বিএম আশরাফ উল্যাহ তাহের সড়ক দুর্ঘটনায় একজন চিকিৎসক মারা যাবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
ফায়ার সার্ভিস সিলেট-এর উপ-পরিচালক কোবাদ আলী সরকার জানান, দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলে ৪ জন এবং ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তিন জনের মৃত্যু হয়।
দক্ষিণ সুরমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুল ইসলাম জানান, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা লন্ডন এক্সপ্রেস (ঢাকা মেট্রো-ব ১৫-৩১৭৬) ও সিলেট থেকে ছেড়ে যাওয়া ঢাকামুখী এনা পরিবহনের (ঢাকা মেট্রো ব ১৪-৭৩১১) বাসের মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে উভয় বাসের সামনের অংশ দুমড়ে-মুচড়ে যায়।

শেয়ার করুন