আবারও টেস্টে নিজেদের দুর্বলতা প্রকাশ করলো বাংলাদেশ

সকাল ডেস্ক :
যে মাঠে আগে কোনো দল ৩১৭ রানের বেশি তাড়া করে জিততে পারেনি, সেখানে ৭ উইকেটে ৩৯৪ পেরিয়ে বাংলাদেশকে হারিয়ে দিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। শেষ দিনের শেষ সেশন পর্যন্ত ‘অদ্ভুত’ আচরণ করে যাওয়া উইকেটে এমন রেকর্ড সম্ভব হয়েছে সফরকারীদের অভিষিক্ত ব্যাটসম্যান কাইল মেয়ার্সের ধ্রুপদী অপরাজিত ডাবল সেঞ্চুরিতে।
ওয়েস্ট ইন্ডিজের এটি দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড। এর আগে তারা অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৪৪৮ রান পাড়ি দিয়েছে।
মাত্র ছয়জন ক্রিকেটার অভিষেক টেস্টে ডাবল সেঞ্চুরি করেছেন। এর মধ্যে কাইল মেয়ার্স একমাত্র ক্রিকেটার, যিনি চতুর্থ ইনিংসে এই কীর্তি গড়লেন।
চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরি স্টেডিয়ামে টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে মেহেদী হাসান মিরাজের সেঞ্চুরি (১০৩) এবং সাদমান ইসলাম (৫৯), সাকিব আল হাসানের (৬৮) হাফসেঞ্চুরিতে ৪৩০ রান সংগ্রহ করেছিল বাংলাদেশ। প্রথম ইনিংসে ওয়েস্ট ইন্ডিজ গুটিয়ে যায় ২৫৯ রানে।
১৭১ রানের লিড নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশ থামে ২২৩ রানে। তাতে মোট লিড হয় ৩৯৪।
বিশাল রানের টার্গেটে খেলতে নেমে চতুর্থ দিন শেষ বিকেলে তিন উইকেট হারায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। প্রথম ইনিংসে চার উইকেট নেয়া মিরাজ এই তিনটি উইকেট নেন।
অবাক করার বিষয় হলো তৃতীয় দিন যে উইকেটে ভয়ংকর সব টার্ন দেখা গেছে, পঞ্চম দিন তার কিছুই চোখে পড়েনি।নিজেদের অভিষেক টেস্টে খেলতে নামা কাইল মেয়ার্স এবং এনক্রুমা বোনার অনায়াস ব্যাটিংয়ে ২১৬ রানের জুটি গড়েন। এই সময়ে তারা ৪৪২টি বল খেলেছেন!
দিনের মধ্যভাগে কুইকারে এনক্রুমা বোনারকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন তাইজুল ইসলাম। তিনি ৮৬ রানে ফিরলেও মেয়ার্স ২১০ রানের অতিমানবীয় এক ইনিংস খেলে দলকে জয়ের দিকে নিতে যেতে থাকেন।
বাংলাদেশ এদিন ক্যাচ ফেলেছে, রিভিউয়ের সুযোগ একাধিকবার নিতে ভুল করেছে। ফিল্ডিংটাও ভালো হয়নি।

শেয়ার করুন