সিলেটের ক্রিকেট নিয়ে সাংবাদিকদের সাথে আলোচনায় অলক-এনামরা

স্পোর্টস ডেস্ক : সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে চলছে মাহা ইমজা মিডিয়া কাপ ফুটবল ২০২১। বৃহস্পতিবার  দুপুরের দিকে সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে হঠাৎ এনামুল হক জুনিয়রের আগমন।  একে একে এসে হাজির হন অলক কাপালি, ইমতিয়াজ হোসাইন তান্না, আহমেদ সাদিকুর রাহমান তাজিনসহ সিলেট ক্রিকেটারস এ্যাসোসিয়েশনের সকল সদস্য।

সিলেট ক্রিকেটারস এ্যাসোসিয়েশনের সকল সদস্য উপস্থিত হলে, সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে দক্ষিণ পাশে নিজেদের মধ্যে মিটিংয়ে বসেন অলক কাপালি, ইমতিয়াজ হোসাইন তান্না, এনামুল হক জুনিয়ররা।

সিলেট প্রথম বিভাগ ক্রিকেট লিগ আয়োজন নিয়ে চলছে টালবাহনা। দুই দাপ পিছিয়েও এখনো লিগ আয়োজনের কোনো সম্ভবনা দেখা যাচ্ছে। গেল নভেম্বরের শেষ সপ্তাহে লিগ আয়োজনের কথা বলেছিলেন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মাহী উদ্দিন আহমেদ সেলিম। করোনার অজুহাত দেখি এবার লিগ আয়োজন করতে চাচ্ছে না লিগ কমিটি। অথচ নতুন করে লিগ শুরু করার জন্য গেল মৌসুমের স্তগিত হওয়া লিগ বাতিল করা হয়েছিল।

গেল নভেম্বরে ক্রিকেট লিগ কমিটি বসে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন ১৫ই ডিসেম্বর পর্যন্ত তারা করোনা পরিস্থিতি দেখে সিদ্ধান্ত নিবেন লিগ আয়োজনের ব্যাপারে। পরের মিটিংয়ে তারা আরো সময় নেন, লিগ আয়োজনের জন্য বেছে নেন নতুন বছরকে। ক্রিকেটাররাও আশায় ছিলেন নতুন বছরে হয়তো তাঁদের জন্য নতুন বার্তা বয়ে নিয়ে আসবে। কিন্তু নতুন বছরের লিগ কমিটির বৈঠকের সিদ্ধান্ত হতাশ করে তাঁদেরকে। গেল ২ই জানুয়ারির শেষ মিটিংয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে, করোনার কারণে এ বছর আর লিগ আয়োজন করা হচ্ছে না। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আবার লিগ আয়োজন করা হবে।

অথচ দেশের অনেক জেলায় এখন ক্রিকেট লিগ চলছে। বিসিবিও এটাকে স্বাগত জানিয়েছে, জাতীয় দলের পুলের বাইরে থাকা ক্রিকেটারদের নিয়ে লিগ আয়োজন করতে তাঁদের কোনো বাধা নেই।

ক্রিকেটারদের এই ক্রান্তিকালে সিলেট প্রথম বিভাগ লিগ আয়োজন নিয়ে এমন টালবাহানায় নিজেদের মধ্যে বৈঠক করেন সিলেট ক্রিকেটারস এ্যাসোসিয়েশনের সকল ক্রিকেটাররা। এসময় উপস্থিত ছিলেন সিলেট ক্রিকেটারস এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এনামুল হক জুনিয়র, সহ সভাপতি ইমতিয়াজ হোসাইন তান্না, সাধারণ সম্পাদক আহমেদ সাদিকুর রাহমান তাজিন।

নিজেদের মধ্যে আলোচনা শেষে বিকেল সাড়ে ৪ টায় সিলেট প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের সাথে মিটিংয করেন এনামুল হক জুনিয়র, অলক কাপালি, ইমতিয়াজ হোসাইন তান্না সহ সিলেট ক্রিকেটারস এ্যাসোসিয়েশনের বর্তমান কমিটির অনেকে। জেলা স্টেডিয়ামের কনফারেন্স রুমে এসময় সাংবাদিকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিলেট প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি একরামুল কবির, সিলেট প্রেস ক্লাবের বর্তমান সভাপতি ইকবাল সিদ্দিকি, সাধারণ সম্পাদক আ. র. রেনু, ইমজার সেক্রেটারি সজল ছত্রী, সিনিয়র সাংবাদিক কামকামুর রাজ্জাক রেনু, সিলেট জেলা প্রেস ক্লাবের সহ সভাপতি ছোটন সিংহ, সাংবাদিক মইন উদ্দিন মঞ্জু।

এসময় অলক কাপালি সিলেট ক্রিকেট লিগের অতীত ঐতিহ্যের কথা উপস্থিত সবাই স্মরণ করে দেন। তিনি বলেন; ‘একটা সময় ঢাকা লিগের পরেই সিলেট ক্রিকেট লিগের অবস্থান ছিল। কিন্তু এখন ঠিক সময়ে লিগ আয়োজন করা হয় না। গত বছর করোনা কারণে বন্ধ হওয়া লিগ আবার মাঠে গড়াল না নতুন মৌসুম শুরু করার জন্য। কিন্তু নতুন বছরের দ্বিতীয়  দিনে শুনতে হল এবার আর লিগ হচ্ছে না। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে লিগ আয়োজন করা হবে। এটা আসলে খুবই হতাশা জনক।‘

ইমতিয়াজ হোসাইন তান্নাও আশায় ছিলেন এ বছরটা আরো ভাল কাটবে। গেল বছর করোনায় সব কিছু বন্ধ ছিল, এখন সব কিছু স্বাভাবিক হয়ে আসছে। শুধু মাঠে ক্রিকেট হচ্ছে না। তান্না বলছিলেন, ‘সর্বশেষ জাতীয় ক্রিকেট লিগে সিলেট টায়ার টু চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর আশা করেছিলাম পরের বছর গুলাতে লিগ নিয়ে দুটানা থাকবে না। বিশেষ করে গেল বছর করোনা না হলে আরো ভাল যেত। প্রথম বিভাগ ক্রিকেট লিগ শুরু হলেও করোনার কারণে কন্টিনিউ করা যায়নি। এবার নতুন বছরে নতুন কিছুই প্রত্যাশায় ছিল, কিন্তু লিগ আয়োজনের এমন সিদ্ধান্তে খুবই হতাশ করেছে।“

এদিকে সিলেট প্রথম বিভাগ ক্রিকেট লিগ আয়োজন করতে হলে থাকতে হবে ক্লাবেরও সম্মতি, বড় দুই তিনটি ক্লাবের অসম্মতিতে আটকে আছে এবারের লিগ আয়োজন। ক্লাবগুলো অংশগ্রহণ করতে না চাইলে লিগ কমিটির কিছু করার থাকে না। করোনার কারণে বড় ক্লাবের কর্তারা পিছু হটেছেন। ক্লাব কর্তাদের লিগ খেলতে অনীহা দেখেই লিগ কমিটি সিদ্ধান্ত নেয় যে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে এবার আর লিগ আয়োজন করা হবে না।

দুই তিন ক্লাবের অসম্মতিতে লিগ আয়োজন না করা সিদ্ধান্তটা মেনে নিতে পারছেন না বাংলাদেশ জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক রাজিন সালেহ। এই দুই তিন ক্লাবের সম্মতির উপরে যদি লিগ আয়োজন নির্ভর করে তাহলে বাকি ক্লাবে মিটিংয়ে না ডাকাই ভাল। বড় দুই তিন ক্লাব সম্মতি দিলেই লিগ আয়োজন করা যায়। রাজিন বলেন, “আসলে এটা লিগ কমিটির ব্যর্থতা, তারা বাকি ক্লাবগুলোর আগ্রহকে মুল্যায়ন করেননি। তারা কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে পারতেন।“ লিগ আয়োজন না করার সিদ্ধান্ত লিগ কমিটির ব্যর্থতা হিসেবে দেখছেন রাজিন সালেহ।

শেয়ার করুন