বিলেতের জনপ্রিয় ও প্রবীন কমিউনিটি নেতা আলহাজ্ব এম এ আহাদ আর নেই

সিলেটের সকাল রিপোর্ট: বিলেতের জনপ্রিয় ও প্রবীণ কমিউনিটি নেতা,জগন্নাথপুর বৃটিশ বাংলা এডুকেশন ট্রাস্টের ফাউন্ডার চেয়ারম্যান, অনেক মসজিদ-মাদরাসা-এতিমখানার প্রতিষ্ঠাতা আলহাজ্ব এম এ আহাদ আর নেই। মঙ্গলবার লন্ডন সময় সন্ধ্যা ৬টায়(বাংলাদেশ সময় রাত ১২টায়) শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন এ মানবতাবাদী ব্যক্তিত্ব। তার মৃত্যুতে বাংলাদেশী কমিউনিটিতে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। তাঁর ছেলে রুহি আহাদ পিতার জন্য সবার দোয়া চেয়েছেন।
আলহাজ্ব আব্দুল আহাদ সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার আশারকান্দি ইউনিয়নের কাঁঠালখাইর গ্রামের বাসিন্দা। তিনি প্রথম প্রজন্মের একজন বিলেত প্রবাসী বাঙালি।করোনার প্রথম দফা সংক্রমণের সময় তিনি দেশে ছিলেন। মাস দুয়েক আগে তিনি বিলেতে চান। মাত্র ১৫ দিন আগে করোনা পজিটিভ ধরা পড়ে। এরপর তিনি আইসিইউতে ছিলেন।
জগন্নাথপুর বৃটিশ বাংলা এডুকেশন ট্রাস্টের ট্রাস্টি, প্রবাসী কমিউনিটি নেতা মোবারক আলী জানান, চারদিন আগেও মোবাইলে তাঁর(আহাদ) সাথে তার কথা হয়েছে। তাঁর মৃত্যু সকলকে অভিভাবক শুন্য করে ফেলেছে বলে জানান তিনি।
জিএসসি সাউথ ইস্ট রিজিওনের ট্রেজারার সুফি সুহেল আহমদ জানান, এম এ আহাদের মৃত্যু কমিউনিটির বিশাল ক্ষতি।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের সাথে নিজ বাড়িতে আলহাজ্ব এম এ আহাদ-ফাইল ছবি

আলহাজ্ব এম এ আহাদ সিলেট নগরীর পীর মহল্লাস্থ আলহাজ্ব আব্দুল এতিমখানার প্রতিষ্ঠাতা। এছাড়া, জগন্নাথপুরের নয়াবন্দর হাইস্কুল এন্ড কলেজ প্রতিষ্ঠা, নগরীর পাঠানটুলাস্থ শ্রাবণী জামে মসজিদ ও গোয়াইনঘাটে তার পিতা আইনুদ্দিন ও মাতা আস্তই বিবির নামে একটি মসজিদ প্রতিষ্ঠা ছাড়াও পাঠানটুলা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে একটি ভবন নির্মাণ করে দিয়েছেন তিনি।শেষ বয়সে তিনি নিজ গ্রামে একটি বালিকা বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিলেন। প্রতিষ্ঠানটির কার্যক্রমও বেশ এগিয়েছিল। পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানও বিদ্যালয়ের সাইট পরিদর্শন করেন। করোনার সংক্রমণের কারণে এর কার্যক্রম কিছুটা স্থিমিত হয়ে যায়। বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার আগেই মৃত্যুর কাছে হার মানলেন পরোপকারী এ ব্যক্তিত্ব।

শেয়ার করুন