অকালপ্রয়াত যুব রাজনীতিবিদ জালাল সিআরপির একজন অকৃিত্রিম বন্ধু ছিলেন

সিলেটের সকাল ডেস্ক ।। অকালপ্রয়াত যুব রাজনীতিবিদ মঈনুদ্দিন আহম্মদ জালাল পক্ষাঘাতগ্রস্তদের পুনর্বাসন কেন্দ্র-সিআরপির একজন অকৃত্রিম বন্ধু ছিলেন। সিআরপি সিলেট বিভাগীয় শাখা স্থায়ীভাবে প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে দক্ষিণ সুরমায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সিটি গেটে ৫০ শতাংশ জায়গা দান করে গেছেন তিনি ।

সিআরপি প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের চিকিৎসা, শিক্ষা, বৃক্তিমূলক প্রশিক্ষণসহ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অধিকার এবং তাঁদেরকে সমাজের মূল স্রোতধারায় ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে গত ৪১ বছর যাবৎ অত্যন্ত দক্ষতা ও সুনামের সাথে কাজ করে যাচ্ছে । সিলেটে মইনুদ্দিন আহমদ জালালের আন্তরিকতায় এই প্রতিষ্ঠানের পথ চলা শুরু হয়।

মঙ্গলবার মঈনুদ্দিন আহমদ জালাল স্মরণে এক সভায় বক্তারা এ কথা বলেন। সভা শেষে দোয়া মাহফিল হয়। গত ১৮ অক্টোবর ছিল প্রয়াত মইনুদ্দিন আহমদ জালালের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী। এ উপলক্ষে সিআরপির উদ্যোগে স্মরণসভায় ও মিলাদ মাহফিল শেষে অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের মধ্যে আর্থিক সহায়তা প্রধান করা হয়।

অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আনোয়ার উল ইসলাম, সিলেটের সিনিয়ির আইনজীবী ও প্রবীণ বাম রাজনীতিবিদ বেদানন্দ ভট্টাচার্য, সিলেট সিটি করপোরেশনের ২২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর এডভোকেট ছালেহ আহমদ সেলিম, এডভোকেট আনোয়ার হোসেন সুমন ও সমাজকর্মী সাব্বির আহমেদ। সভায় সভাপতিত্ব করেন মঈনুদ্দিন আহমদ জালালের সহধর্মিনী শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থি বিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. নাজিয়া চৌধুরী।

সভায় সিলেট শাখার ম্যানেজার চৌধুরী মো: কামরুল হাসান সিআরপি সিলেট শাখার কার্যক্রম সম্পর্কে উপস্থিত সকলকে অবহিত করেন। সিলেটে সিআরপির যাত্রা শুরুর প্রসঙ্গ আলোচনায় বক্তারা মঈনুদ্দিন আহমদ জালালকে স্মরণ করেন। তারা বলেন, জালাল ছিলেন একজন নিবেদিত প্রাণ। তিনি সর্বদাই মানুষের কল্যাণে ও সেবায় নিযোজিত ছিলেন । অসহায় মানুষের সেবায় নিজেকে সর্বদাই ব্যস্ত রাখতেন, তাঁর সেবামূলক কাজ ছিল সর্বদাই প্রচারবিমুখ। সেবাই মানুষের ধর্ম, আর এই সেবাই তিনি, তার জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্তকাজ করে গেছেন। সর্বোপরি তিনি একজন সরল ও উদার মনের মানুষ ছিলেন।

সিআরপির পক্ষে সভায় জানানো হয় যে সিআরপি, সিলেট শাখা হতে গত সাড়ে তিন বছরে প্রায় ১৬ হাজার মানুষকে চিকিৎসা ও পুনর্বাসন সেবা প্রদান করা হয়েছে এবং করোনা পরবর্তী সময়ে সিলেট জেলায় প্রায়

৩০০ জন প্রতিবন্ধী পরিবারকে খাদ্য সামগ্রী এবং নগদ টাকা প্রদান করা হয়েছে। তাছাড়া সিলেট কেন্দ্র থেকে এই পর্যন্ত প্রায় ১০০ প্রতিবন্ধী মানুষকে পুনর্বাসন করার লক্ষ্যে বিভিন্নসহায়ক সামগ্রী প্রদান করা হয়েছে। কিন্ত অত্যন্ত পরিতাপের বিষয়, বর্তমানে স্থান সংকুলান না হওয়ার কারণে পুনর্বাসন সেবা প্রদান করা সম্ভব হচ্ছে না। বর্তমানে

সিআরপি সিলেট কেন্দ্রে, ফিজিওথেরাপি, অকুপেশনাল থেরাপি, স্পীচ থেরাপি এবং কৃত্রিম অঙ্গসংযোজন সেবা সমূহ চালু রয়েছে।

উল্লেখ্য, সিআরপির প্রতিষ্ঠাতা ব্রিটিশ ফিজিওথেরাপিস্ট ড.ভেলরী এ টেইলর। তিনি ১৯৭৯ সালে ঢাকা জেলার সাভার উপজেলার চাপাইনে সিআরপি প্রতিষ্ঠা করেন। বর্তমানে এই প্রতিষ্ঠানটি দেশের ১১ টি শাখার মাধ্যমে অসহায় প্রতিবন্ধী ও সাধারণ মানুষের চিকিৎসা কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। বর্তমানে সিলেট শাখাটি শাহজালাল উপশহরস্থ মেইন রোড ডি -ব্লকে একটি ভাড়া বাড়ীতে কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

স্থায়ীভাবে কেন্দ্র নির্মাণের লক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন দপ্তর ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সাথে কাজ করে যাচ্ছে। সরকারী সহযোগিতা পেলে অল্প সময়ের মধ্যে স্থায়ীভাবে কেন্দ্রনির্মাণের কাজ শুরু করা হবে ।

শেয়ার করুন