নবীগঞ্জে পাশবিকতার অভিযোগে পিতা গ্রেফতার

আব্দুস সালাম (৪০)

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে ধর্ষণের অভিযোগে আব্দুস সালাম (৪০) নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। অভিযোগ উঠেছে, সালাম তার ১৩ বছর বয়সী কিশোরী মেয়েকে ধর্ষণ করেছেন। ধর্ষণে বাধা দেয়ায় মা মেয়েকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে। মা মেয়ে বর্তমানে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

এ ঘটনায় কিশোরী মেয়েটির মা স্বামী আব্দুস সালামকে আসামী করে নবীগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ সংশোধনী ২০০৩ আইনে মামলা দায়ের করেছেন।

এরই প্রেক্ষিতে গত বৃহস্পতিবার বিকেলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ইনাতগঞ্জ ফাঁড়ির এসআই শাহজাহান আহমেদ বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে এলাকাবাসীর সহযোগিতায় আব্দুস সালামকে গ্রেফতার করেন। তাকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

মামলার এজাহারে মেয়েটির মা উল্লেখ করেন তার স্বামী আব্দুস সালাম এর বাড়ী সিলেট জেলার ওসমানী নগর উপজেলার কালনীচর গ্রামে। তার স্বামী পেশায় সিএনজি( অটোরিক্সা) চালক।

তাদের বিয়ে হয় বিগত ১৪ বছর পূর্বে। তাদের ২ মেয়ে ও ১ কন্যা সন্তান রয়েছে। বিগত ৩ বছর ধরে তারা নবীগঞ্জ উপজেলার দীঘলবাক ইউনিয়নের জিয়াপুর গ্রামে মাওলানা সিরাজুল ইসলামের কলোনীতে ভাড়া বাসা নিয়ে বসবাস করছেন।

গত ১৪ আগষ্ট তিনি কিশোরী মেয়েকে বাড়িতে রেখে ১ ছেলে ও ১ মেয়েক নিয়ে বাবার বাড়ী ওসমানী নগরের সিরাজগঞ্জে বেড়াতে যান।

তিনি বাড়ীতে না থাকার সুবাদে এবং ছোট মেয়েটি ঘুমিয়ে পড়লে বাবা আব্দুস সালাম মেয়ের ইচ্ছার বিরুদ্ধে তাকে জোরপূর্বক ধর্ষন করে।

মামলায় উল্লেখ করা হয়, গত ১৩ সেপ্টেম্বর রাত ১১ টার দিকে তার স্বামী আব্দুস সালাম তরকারী আনার জন্য তাকে পার্শ্ববর্তী জিয়াপুর ধনমিয়ার কলোনীতে স্বামীর বড় বোনের বাসায় পাঠিয়ে দেন।

এই সুযোগে আব্দুস সালাম রাত সাড়ে ১১ টার সময় পূর্বের ন্যায় মেয়েটিকে ধর্ষনের চেষ্টা করে। এ সময় মেয়েটি বাধা দিলে বেধড়ক মারপিট করে সালাম। এ সময় মেয়েটির মা বাড়ীতে চলে আসলে মেয়েকে মারপিটের কারণ জানতে চান। এ সময় মা মেয়ে দুজনকেই পিঠিয়ে আহত করেন তিনি।

পরে মেয়েটি পূর্বের ঘটনাসহ সব কিছু মায়ের কাছে খুলে বলে।

মেয়ের মা তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাটি তার বাবার বাড়িতে জানালে তার মামা সাহিদ মিয়া ও চাচাতো ভাই সুন্দর আলী জিয়াপুর গ্রামে ছুটে এসে স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় আহত মা মেয়েকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করেন। বর্তমানে তারা চিকিৎসাধীন।

ধর্ষণের শিকার ওই মেয়ে একটি মাদ্রাসার ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী।

মলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ইনাতগঞ্জ ফাঁড়ির এসআই শাহজাহান আহমেদ জানান, বাবার বিরুদ্ধে কিশোরী মেয়েকে ধর্ষনের অভিযোগে মেয়েটির মা বাদী হয়ে নবীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেছেন। অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

শেয়ার করুন