জকিগঞ্জের প্রথম উপজেলা চেয়ারম্যান কয়েস চৌধুরী না ফেরার দেশে

জকিগঞ্জ প্রতিনিধি : জকিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের প্রথম চেয়ারম্যান, রাজনীতিবিদ, সংগঠক, ব্যবসায়ী, শিক্ষক ও সমাজসেবী আফতাব হোসেইন চৌধুরী কয়েস(৭৭) আর নেই। মঙ্গলবার সকাল সোয়া এগারোটায় তিনি সিলেটের একটি প্রাইভেট হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন( ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। দীর্ঘদিন ধরে তিনি ডায়াবেটিস, কিডনীসহ নানা বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন। ১ ছেলে ও মেয়ের জনক কয়েস চৌধুরী। মঙ্গলবার বাদ এশা দরগাহ শরীফে জানাজাশেষে দরগাহ কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।
মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক আফতাব হোসেইন চৌধুরী ১৯৪৩ সালের ২৬ জানুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৬৩ সালে তিনি মৌলভীবাজার মহকুমা ছাত্রলীগের সভাপতি এবং পরের বছর তিনি সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৬৬ সালে বঙ্গবন্ধুর ছয়দফা আন্দোলনে সক্রিয় সম্পৃক্ত থাকায় তিনি ‘ ছয়দফা আফতাব’ হিসেবে পরিচিতি পান। সিলেটের মদনমোহন কলেজ থেকে বিকম পাশ করেন। ১৯৭৩ সালে তিনি টুকের বাজার আব্দুস সাত্তার উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮৫ সালে তিনি প্রথম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বিপুল ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। চেয়ারম্যান থাকাকালে জকিগঞ্জের যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রাখেন। ১৯৯১ সালে তিনি সিলেট জেলা গণ ফোরামের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সদস্য হন। সাবেক মন্ত্রী এমএ হকের সাথে তিনি বালাইর হাওর উন্নয়ন কমিটির সাধারণ সম্পাদক হিসেবে কাজ করেন। জিএমসি একাডেমী, কাড়াবাল্লা জুনিয়র হাই স্কুল সহ নানা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠায় তিনি ভূমিকা রাখেন। তিনি সিলেটস্থ জকিগঞ্জ এসোসিয়েশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন।
শোক প্রকাশ \ কয়েস চৌধুরীর মৃত্যুতে সংসদ সদস্য হাফিজ আহমদ মজুমদার, উপজেলা চেয়ারম্যান লোকমান উদ্দিন চৌধুরী, সিলেট মহানগর আওয়ামীলীগ সভাপতি মাসুক উদ্দিন আহমদ, পৌর মেয়র হাজী খলিল উদ্দিন, সাবেক চেয়ারম্যান ইকবাল আহমদ, শাব্বির আহমদ প্রমুখ শোক প্রকাশ করেছেন।

শেয়ার করুন