সিলেট চলচ্চিত্র উৎসবের শেষ দিনে ‘বন্ধু মানে আয়না’

ডেস্ক রিপোর্ট:৪র্থ সিলেট চলচ্চিত্র উৎসবের শেষ দিনে ১৫ জুলাই মঙ্গলবার প্রদর্শিত হচ্ছে চলচ্চিত্র সংগঠন কাকতাড়ুয়া থেকে নির্মিত স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র “বন্ধু মানে আয়না” । সিলেট চলচ্চিত্র উৎসবে এবছর ১১২ দেশ থেকে জমা পড়া ৩০৬১টি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র থেকে নির্বাচিত ১০৯টি চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হয়েছে। ১১দিন ব্যাপি উৎসবের শেষ দিন অন্যান্য চলচ্চিত্রে সাথে সকাল ১১টা ৪৫ মিনিটে “মরনিং শো” তে প্রচার হবে “বন্ধু মানে আয়না” ।
চলচ্চিত্রটির পরিচালক ও সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী পরিচালক ফয়সাল খলিলুর রহমান জানান, বন্ধুত্ব ও মানবজীবনের সম্পর্কের জটিল সমীকরণ নিয়ে চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করেছিলাম। বর্তমানে পৃথিবীর মানুষেরা একটা সংকটময় মূহুর্তের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। যদিও সিনেমার বড় পর্দা চলচ্চিত্রের প্রাণ, তবে অনলাইন মাধ্যম চলচ্চিত্রের নতুন আরেকটি প্ল্যাটফর্ম বলে মনে করেন এই নির্মাতা।
কাকতাড়–য়া থেকে নির্মিত ‘বন্ধু মানে আয়না’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন তাসমিয়া কানিজ আহমেদ, অপিউর রহমান, ইয়ামিন ওসমান ইউহান, রেদওয়ানা তাবাসসুম বহ্নি, সাবিহা নাসরিন তৃণা, নওরিন তন্বী, মাহির চৌধুরী প্রমুখ। প্রসঙ্গত, স্থিরচিত্র ও চলচ্চিত্র বিষয়ক সংগঠন কাকতাড়ুয়া কমিউনিটি ডেভেলপমেন্টে বিশেষ অবদানের জন্য বাংলাদেশের সেরা সংগঠন হিসেবে জয় বাংলা ইয়থ পুরষ্কারে ভূষিত হয়েছিলো। এ সংগঠনটি প্রতিষ্ঠার পর থেকেই সাংস্কৃতিক ও সামাজিক আন্দোলন করে আসছে।
উল্লেখ্য, এ বছর সিলেট চলচ্চিত্র উৎসবের প্রধান উপদেষ্টার দায়িত্বে ছিলেন চলচ্চিত্র উৎসব বিশেষজ্ঞ প্রেমেন্দ্র মজুমদার। জুরি বোর্ডে ছিলেন চলচ্চিত্র নির্মাতা আশরাফ শিশির, ওয়াহিদ ইবনে রেজা, মোক্তাদির ইবনে ছালাম, অভিনেতা মনোজ কুমার, বাংলাদেশী চলচ্চিত্র সমালোচক সাদিয়া খালিদ রীতি ও ভারতীয় চলচ্চিত্র সমালোচক সিদ্ধার্থ মাইতি।
সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় চলচ্চিত্র সংসদের সভাপতি ইফতেখার আহমেদ ফাগুন জানান, দশ দিনব্যাপী উৎসবে চলচ্চিত্র প্রদর্শনীর পাশাপাশি চলচ্চিত্রের বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। যেখানে বাংলাদেশসহ ভারত, ইরান, তুরস্ক, দক্ষিণ কোরিয়া, মেক্সিকো, রাশিয়া, যুক্তরাজ্য, মিশর, ব্রাজিল, পাকিস্তান, বেলজিয়াম, আর্জেন্টিনা ও ভেনেজুয়েলার ৪০ জন চলচ্চিত্র নির্মাতা অংশ নিয়েছেন।

শেয়ার করুন