মৌলভীবাজারে সাহেদের সন্ধানে তৎপর পুলিশ-র‌্যাব

সাহেদের সন্ধানে মৌলভীবাজারে যানবাহনে পুলিশের তল্লাশী

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি: রাজধানীর রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিম ভারতে পালিয়ে যাওয়ার জন্য মৌলভীবাজারে অবস্থান করছেন-এমন খবরের ভিত্তিতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী জেলায় অভিযান জোরদার করেছে।

বিশেষ করে কুলাউড়া উপজেলার চাতলাপুর সীমান্ত দিয়ে সাহেদ যাতে ভারতের ত্রিপুরায় পালিয়ে যেতে না পারে সেজন্য র‍্যাব ও পুলিশ যানবাহনে তল্লাশি করছে। গুরুত্বপূর্ণ জায়গাসহ হোটেল ও রিসোর্টগুলোতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরদারি রয়েছে।

সোমবার (১৩ জুলাই) বিকাল থেকে ভারতের ত্রিপুরাগামী সড়কের মৌলভীবাজার-চাতলাপুর সড়কের শমসেরনগর চৌমুহনী চত্বর ও লাউয়াছড়া সড়কের ফুলবাড়ি এলাকায় চেকপোস্ট বসিয়ে যানবাহনে তল্লাশি চালায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

একাধিক থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা (ওসি) সংবাদ মাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জানা গেছে, পলাতক সাহেদ কুলাউড়া উপজেলার শরীফপুর সীমান্ত দিয়ে ভারতের ত্রিপুরায় পালাতে পারেন এমন খবর পেয়েছে পুলিশ। তাই সতর্কতাস্বরূপ যানবাহনে তল্লাশির নির্দেশ দেওয়া হয় সংশ্লিষ্ট থানাগুলোকে।

যার পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার বিকেল ৫টার দিকে কমলগঞ্জ থানার শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক আনজির হোসেনের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল শমশেরনগর চৌমুহনার সড়কে যানবাহনে তল্লাশি করেন।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একটি সূত্রে জানা গেছে, সোমবার দুপুরে সাহেদের মুঠোফোন ট্র্যাক করে মৌলভীবাজারে অবস্থানের তথ্য জানা যায়। এরপরই পুলিশ ও অন্যান্য বাহিনী সর্তক অবস্থান নেয় এবং শমশেরনগর ও শ্রীমঙ্গল উপজেলায় পুলিশি তৎপরতা বৃদ্ধি করা হয়।

শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক (তদন্ত) অরুপ কুমার চৌধুরী বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানা গেছে রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক সাহেদ চাতলাপুর সীমান্ত দিয়ে ভারতের ত্রিপুরা প্রবেশ করতে পারেন। তাই তাকে ধরার জন্য সতর্কতামূলক পুলিশ শমশেরনগরে তদারকি চালাচ্ছে। সোমবার সন্ধ্যা পৌণে ৭টা পর্যন্ত পুলিশ সদস্যদের শমশেরনগর চৌমুহনায় দায়িত্ব পালন করতে দেখা গেছে।

কমলগঞ্জ থানার ওসি আরিফুর রহমান বলেন, সাহেদের কমলগঞ্জে অবস্থানের কথা জানা যায়নি। তবে পুলিশি তৎপরতা বৃদ্ধি করা হয়েছে।

এদিকে শ্রীমঙ্গল থানার পুলিশ পরিদর্শক তদন্ত মো.সোহেল রানা বলেন, সারাদিন র‍্যাবের পাশাপাশি শ্রীমঙ্গল উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়েছে পুলিশ। তিনি কোথায় অবস্থান করছে তা সুনির্দিষ্ট করে বলা যাচ্ছে না।

শেয়ার করুন