নকল করোনাভাইরাস টেস্টের রিপোর্ট:ডা: সাবরিনা গ্রেফতার

ডেস্ক রিপোর্ট:নকল করোনাভাইরাস টেস্টের রিপোর্ট সরবরাহের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় জেকেজি হেলথ কেয়ারের চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা আরিফকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রবিবার (১২ জুলাই) দুপুরে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) তেজগাঁও জোনের একটি টিম তাকে আটক করে। পরে তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

ডিএমপির তেজগাঁও জোনের ডেপুটি কমিশনার হারুন-অর-রশীদ এই তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, “প্রাথমিকভাবে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে নকল করোনাভাইরাস রিপোর্ট সরবরাহের সঙ্গে জড়িত থাকার প্রমাণ মেলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।”

উল্লেখ্য, প্রতারণার অভিযোগে ২৪ জুন জেকেজি হেলথকেয়ারের নমুনা সংগ্রহের অনুমোদন বাতিল করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উপ-মহাপরিচালক স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে জেকেজি’র অনুমোদন বাতিল করা হয়।

এর আগে করোনাভাইরাস টেস্টের নকল রিপোর্ট সরবরাহের অভিযোগে জেকেজি হেলথকেয়ারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুল চৌধুরীসহ প্রতিষ্ঠানটির ৩ কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করে ডিএমপি।

অফিস আদেশে বলা হয়, গত ৬ এপ্রিল করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহের অনুমোদন পায় জেকেজি হেলথকেয়ার। কিন্তু “কিওস্ক” স্থাপন এবং অন্যান্য অনুমতি পেতে পেতে ১৬ এপ্রিল পর্যন্ত সময় লেগে যায়।

অভিযোগ ওঠে, নমুনা জমা দেয়ার জন্য কিওস্কের প্রবেশ করার পর এক ব্যক্তি এসে নমুনা সংগ্রহ না করে আগতদের নাম ঠিকানা নিয়ে বাড়িতে পাঠিয়ে দেন। পরে জেকেজির থেকে ফোন করে ৫ থেকে ৮ হাজার টাকার বিনিময়ে পরীক্ষার ফলাফল সংগ্রহ করতে বলা হয়।

প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে আরও অভিযোগ, অনুমোদনের চেয়ে দ্বিগুণ সংখ্যক নমুনা তারা প্রতিদিন সংগ্রহ করেছেন জেকেজির কর্মীরা। তারা এতোটাই বেপোরোয়া হয়ে উঠেছিলেন যে একদিন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের সাথে মহাপরিচালকের সামনেই তারা দুর্ব্যবহার করেন।

প্রতিষ্ঠানটির এই দুর্নীতি নিয়ে দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর প্রকাশ হলে মহাপরিচালক নিজে তাদেরকে সীমিত সংখ্যক নমুনা সংগ্রহের কথা বলেন। কিন্তু তাতেও তারা কর্ণপাত করেননি।

শেয়ার করুন