সিলেট নগরেও ঢুকে পড়েছে বানের পানি!

সিলেটের সকাল রিপোর্ট ।। সিলেট নগরীতে প্রবেশ করেছে সুরমা নদীর পানি। নদীর তীর উপচে পানি প্রবেশ করেছে বিভিন্ন এলাকায়। আবার নদী আর খাল পানিতে একাকার হয়ে পড়ায় বিভিন্ন এলাকায় সৃষ্টি হয়েছে জলাবদ্ধতার। নগরের উপশহরসহ নদী তীরের অন্তত ১০টি এলাকার পথ-ঘাট রোববার সকাল থেকেই পানিতে তলিয়ে গেছে।

কোথাও হাঁটুপানি, কোথাও আবার কোমরপানি।সড়কের পাশাপাশি নিচু এলাকার বাসা-বাড়িতেও উঠেছে পানি। পানি প্রবেশ করেছে সিলেট ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের অফিসেও। মূলত, টানা বৃষ্টিপাত ও পাহাড়ি ঢলের কারণে সুরমার দুই তীর উপচে পানি প্রবেশ করছে নগরে। আর এ কারণে দুর্ভোগে পড়েছেন এসব এলাকার জনসাধারণ।

সিলেট নগরের উপশহরের নদী তীরের কয়েকটি ব্লক,  তেররতন, কালীঘাট, ছড়ারপাড়, মাছিমপুর, যতরপুর তালতলা, মেন্দিবাগ, শামীমাবাদসহ বেশ কয়েকটি  এলাকার একাংশ সুরমার পানিতে প্লাবিত হয়েছে।  বাসাবাড়িতে পানি ঢুকে যাওয়ায় অনেকে ইটের মধ্যে কাঠ ফেলে ঘরের মধ্যে চলাচল করছে। অনেকের রান্নাঘর তলিয়ে যাওয়ায় বাইরে থেকে খাবার কিনে খেতে হচ্ছে।

এছাড়া নগরের অভ্যন্তরের বিভিন্ন এলাকায় জলাবদ্ধতার কারণে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেও পানি উঠেছে। যদিও বিকেলে বৃষ্টিপাত না হওয়ার কারণে এসব এলাকার পানি নেমে গেছে। তবে সুরমার তীরের এলাকাগুলোর কিছু কিছু স্থানে এখনও জলাবদ্ধতা রয়েছে।

ভুক্তভোগী নগরবাসীদের কয়েকজন জানিয়েছেন, নগরের প্লাবিত এলাকার পাশ দিয়ে সুরমা নদীর সঙ্গে সংযোগ স্থাপনকারী ছড়া রয়েছে। নদীতে পানি বেশি থাকায় কয়েক দিন ধরে টানা বৃষ্টিপাতের কারণে সৃষ্ট পানি ছড়া দিয়ে নদীতে মিশতে পারছে না। এ অবস্থায় ছড়া ও নদীর তীরবর্তী এলাকাগুলোতে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। বৃষ্টিপাত না কমলে এমন অবস্থার পুরোপুরি অবসান হবে না বলেও তারা ধারণা করছেন।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের সর্বশেষ তথ্য মতে- সুরমা নদীর পানি সিলেট পয়েন্টে বিপৎসীমার এক সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। আর এতেই নদী তীরের এলাকাগুলোতে আঘাত হানে বন্যার পানি। তবে বৃষ্টি কমছে। আজ সোমবার পরিস্থিতি একটু উন্নতি হবে। এখন বর্ষাকাল; তাই বৃষ্টি হবে। তবে পরিস্থিতি মোকাবেলায় পাউবো প্রস্তুত আছে।

শেয়ার করুন