জকিগঞ্জে করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তিকে মাইকিং করে দাফন !

ব্যাংক ম্যানেজার-ছাত্রলীগ নেতাসহ নতুন আক্রান্ত ১৮

জকিগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ জকিগঞ্জে করোনায় একজনের মৃত্যুসহ নতুন করে ১৮ জনের শরীরে করোনা পজিটিভ সনাক্ত হয়েছে। মৃত ব্যক্তি হলেন জকিগঞ্জ সদর ইউনিয়নের হাইল ইসলামপুর গ্রামের মৃত কালা মিয়ার ছেলে আবুল কালাম (৪৬)। তবে , বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার(ডাব্লিউএইচও) গাইড লাইন ছাড়াই স্বাভাবিকভাবেই মৃত ব্যক্তির দাফন সম্পন্ন হয়েছে বলে জানা গেছে।
গত ২ জুন সিলেট এমএজি ওসমানী হাসপাতালে শ্বাসকষ্টসহ করোনা উপসর্গ নিয়ে ওই ব্যক্তি মারা যান। পরে স্বজনরা লাশ নিয়ে গ্রামের বাড়িতে এলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জকিগঞ্জের প্রশাসনকে এ তথ্য জানায়নি। এ কারণে স্বাভাবিকভাবেই মাইকিং করে মৃত ব্যক্তির জানাযা শেষে দাফন করা হয়। জানাযায় বিপুল সংখ্যক লোক উপস্থিত ছিলেন।
৫ জুন সিলেটের ল্যাব থেকে জকিগঞ্জে আবুল কালামের নামের একজনের পজিটিভ রিপোর্ট প্রশাসনের কাছে আসে। এ রিপোর্ট পেয়ে প্রশাসন ঐ লোকের খোঁজখবর নিতে শুরু করে। একপর্যায়ে প্রশাসন জানতে পারে ঐ ব্যক্তি সিলেট এমএজি ওসমানী হাসপাতালে করোনা উপসর্গ নিয়ে গত ২ জুন মারা গেছেন এবং দাফন হয়েছে স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায়। এমন খবর পেয়ে প্রশাসনের কর্মকর্তাদের মনেও ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। উপজেলা জুড়ে বিরাজ করছে আতংক।
জকিগঞ্জ থানার ওসি মীর মো. আব্দুন নাসের জানিয়েছেন, গত ২ জুন শ্বাসকষ্টসহ করোনা উপসর্গ নিয়ে আবুল কালাম নামের একজন লোক সিলেট এমএজি ওসমানী হাসপাতালে মারা গেলেও ওসমানী হাসপাতাল থেকে এ তথ্য তখন আমাদেরকে জানানো হয়নি। এ কারণে স্বাভাবিক নিয়মেই মাইকিং করে মৃত ব্যক্তির দাফন হয়েছে। মারা যাবার ৩ দিন পর আমাদের কাছে ঐ ব্যক্তির নামে পজিটিভ রিপোর্ট আসে। তখন খবর নিয়ে জানতে পারি তিনি মারা গেছেন। করোনা উপসর্গে আবুল কালামের মৃত্যু হয়েছে এ খবরটি আমাদেরকে তাৎক্ষণিক জানানো হলে সরকারি বিধি অনুযায়ী তার দাফন করা যেত। তিনি বলেন, আবুল কালামের জানাযাসহ দাফনকার্যে যারা অংশ নিয়েছেন তাদেরকে এখন তাৎক্ষণিক সনাক্ত করা সম্ভব হচ্ছে না। যারা এ জানাযাসহ দাফনে অংশ নিয়েছেন-তাদের সকলকে স্বেচ্ছায় হোমকোয়ারেন্টিনে থাকার অনুরোধ করছি।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আব্দুল্লাহ আল মেহেদী এ প্রসঙ্গে বলেন, আবুল কালাম নামের একজনের করোনা পজিটিভ রিপোর্ট হাতে পেয়ে জানতে পারি তিনি ওসমানী হাসপাতালে ৩দিন আগে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। সেখানে তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিলো। মারা যাবার পর সিলেট থেকে আমাদেরকে তথ্য জানানো হয়নি। আবুল কালামের মৃত্যুর বিষয়টি তাৎক্ষণিক কেন জকিগঞ্জের প্রশাসনকে জানানো হয়নি এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ওসমানী হাসপাতালে কাজের অনেক চাপ রয়েছে। এ কারণে হয়তো তারা খবরটি জানাতে ভূলে গেছে। আবুল কালামের দাফনকার্যে কারা অংশ নিয়েছিলেন তাদেরকে সনাক্ত করার চেষ্টা করছেন বলে জানান এ স্বাস্থ্য কর্মকর্তা।
এদিকে, জকিগঞ্জে শনিবার রাতে নতুন করে যারা আক্রান্ত হয়েছেন তাদের মধ্যে ব্যাংক কর্মকর্তা, ইউপি সচিব, ছাত্রলীগ নেতা, বিদ্যুৎ কর্মী ও গৃহিণীসহ মোট ১৮ জন রয়েছে । তাদের মধ্যে বেশীরভাগের শরীরে উপসর্গ রয়েছে। এনিয়ে শুক্রবার রাত পর্যন্ত জকিগঞ্জে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬৩ জনে। তারা সবার বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

শেয়ার করুন