নি:শর্ত ক্ষমা চাইল চতুলের হামলাকারীরা

চতুল পরিস্থিতি নিয়ে ইউএনও’র অফিসে বৈঠক

সিলেটের সকাল রিপোর্ট : সিলেটের কানাইঘাটের চতুলবাজারে পুলিশের ওপর হামলায় জড়িত ছিল ১২ জন। এর মধ্যে কয়েকজন
নি:শর্ত ক্ষমা চেয়েছে। শুক্রবার বিকেলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে হামলাকারীরা উপস্থিত হয়ে এ ঘটনার জন্য নি:শর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করে। হামলাকারীরা এই মর্মে মুচলেকা প্রদান করে যে, তারা চতুল বাজারের পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন এবং সেনিটাইজার কার্যক্রমে সক্রিয়ভাবে অংশ নেবে। প্রশাসন ও পুলিশের কর্মকর্তা, স্থানীয় বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে নি:শর্ত ক্ষমা চাওয়ায় বিষয়টি নিষ্পত্তি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার বারিউল করিম খাঁন।
স্থানীয় সূত্র জানায়, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে নির্বাহী কর্মকর্তা বারিউল করিম খান ও থানার ওসি শামসুদ্দোহা পিপিএম’র উপস্থিতিতে বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য চতুল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, বাজার ব্যবসায়ী সমিতির নেতৃবৃন্দ ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ আলোচনায় বসেন। সভার শুরুতে চতুল ইউনিয়নের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেন এবং স্থানীয় চেয়ারম্যান মাওলানা আবুল হোসেন চতুলী এ নিয়ে সিলেটের পুলিশ সুপার ফরিদ উদ্দিনের সাথে মোবাইল ফোনে কথা বলেন। পুলিশের উপর হামলার সাথে জড়িতদের ইতিমধ্যে চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে সবধরনের সামাজিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে বলে তিনি পুলিশ সুপারকে আশ্বস্ত করেন।
সভায় বলা হয় , করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে সবাইকে রক্ষা ও সচেতন করার জন্য সরকার নানা ধরনের নির্দেশনা দিয়েছেন। সেই আলোকে উপজেলা প্রশাসন ও থানা পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে। এজন্য সবার সহযোগিতা প্রয়োজন।
থানার অফিসার ইনচার্জ শামসুদ্দোহা পিপিএম বলেন, সরকারী দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে পুলিশের উপর চতুল বাজারে যে হামলা হয়েছে এটা কোন বিবেকবান মানুষ করতে পারে না। তিনি বলেন, চতুলের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে সম্মান দিয়ে জড়িতদের ক্ষমা করে দিয়ে পুলিশ জনগণের সেবক সেটা আবারো প্রমাণ করেছে।
বড়চতুল ইউপি চেয়ারম্যান মাওলানা আবুল হোসেন ও সাবেক চেয়ারম্যান মুবশি^র আলী চাচাই বলেন, বৃহস্পতিবার চতুল বাজারে পুলিশের উপর হামলার ঘটনার সাথে জড়িত ১২ জনকে চিহ্নিত করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে সামাজিকভাবে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে বলে জানান তারা।
গত বৃহস্পতিবার দুপুরে কানাইঘাটের চতুল বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় দোকান ব্যতীত অন্যান্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করতে গিয়ে বাজারের কিছু ব্যবসায়ী ও উশৃঙ্খল জনতার হামলার মুখে পড়ে কানাইঘাট থানা পুলিশ।

শেয়ার করুন