শ্রীমঙ্গলের চা বাগানে কিশোরীকে গণধর্ষণ

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি ।। মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলায় চা বাগানের ভেতরে এক কিশোরী (১৬) গণধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় দুই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শুক্রবার (৭ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার শহরতলীর বধ্যভূমি সংলগ্ন ওই চা বাগানের ভেতরে এ ঘটনা ঘটে।

গ্রেফতার দু’জন হলেন-উপজেলার ভাড়াউড়া চা বাগানের মৃত অনিল দোষাদের ছেলে কৈলাশ দোষাদ (২৫) ও একই চা বাগানের মৃত পূজনা মৃধার ছেলে জহর লাল মৃধা (২৯)। দু’জনই ওই চা বাগানে পাহারাদার হিসেবে কাজ করেন।

ভুক্তভোগী কিশোরীর মা জানান, তার মেয়ে দিনাজপুরে একটি বাসায় কাজ করতো। দুই সপ্তাহ আগে সে শ্রীমঙ্গলে আসে। শুক্রবার সন্ধ্যার পর একই এলাকার ইয়াকুব আলী তার মেয়েকে বধ্যভূমিতে বেড়াতে নিয়ে যায়। সেখান থেকে ফেরার পথে গণধর্ষণের শিকার হয় সে।

শ্রীমঙ্গল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. সোহেল রানা জানান, শুক্রবার সন্ধ্যার পর পূর্ব পরিচিত ইয়াকুব আলীকে নিয়ে বধ্যভূমি এলাকায় বেড়াতে যায় ওই কিশোরী। সেখানে রাত ৯টা পর্যন্ত অবস্থান করে তারা। ফেরার পথে বাসায় পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে তাদের টমটমে (ব্যাটারিচালিত তিন চাকার যান) ওঠায় এক টমটমচালক। এসময় আগে থেকে সেখানে অবস্থান করা দুই ব্যক্তি টমটমে উঠে তাদের চা বাগানের ভেতরে নির্জন স্থানে নিয়ে যায়। পরে একজন মেয়েটির সঙ্গে থাকা ইয়াকুবকে রশি দিয়ে বেঁধে টমটমে আটকে রাখে। রাত সাড়ে ১০টার দিকে ওই কিশোরী ও ইয়াকুবকে বধ্যভূমির কাছাকাছি সড়কে নামিয়ে দিয়ে টমটম নিয়ে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা।

পুলিশের এই কর্মকর্তা আরও জানান, ঘটনাটি জানার পর মেয়েটির মা রাতেই থানায় যান। পরে অভিযান চালিয়ে ভাড়াউড়া চা বাগান থেকে অভিযুক্ত দু’জনকে গ্রেফতার করা হয়। মূল অভিযুক্ত টমটমচালককে শনাক্ত ও গ্রেফতারের জন্য বিভিন্ন স্থানে অভিযান চলছে।

ডাক্তারি পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য ওই কিশোরীকে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ বিষয়ে থানায় মামলা হয়েছে বলে জানান পরিদর্শক সোহেলা রানা।

শেয়ার করুন