বিসিবির ‘জাঁকজমক সংবর্ধনা’ চান না মাশরাফি

স্পোর্টস ডেস্ক : এখন কিংবা অদূর ভবিষ্যতে যে অবসরে যাচ্ছেন না, তা আজ স্পষ্ট করে দিয়েছেন জাতীয় ওয়ানডে দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। বাংলাদেশের ক্রিকেটে মাশরাফি বিন মুর্তজার অবদান, সেটি সবারই জানা। ব্যক্তিগত পারফরমেন্সের চেয়েও দলের প্রয়োজনে সবার আগে নিজেকে বিলিয়ে দিয়েছেন তিনি। গত বিশ্বকাপ থেকে তার অবসর নিয়ে আলোচনাটা বেশি। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) চাইছে, এমন ক্রিকেটারকে বীরের বেশে বিদায় দিতে। কিন্তু মাশরাফি তা চান না। তিনি আদৌ কখনো ক্রিকেট থেকে অবসর নেবেন কিনা সেটাও এখন অনিশ্চিত।

আজ সোমবার বিপিএলের ম্যাচ শেষে মাশরাফি বলেন, ‘দেখুন গতকাল পর্যন্ত আমি বোর্ডের চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটার ছিলাম। আজকে থেকে তো আর চুক্তিবদ্ধ নেই। আমি সব সময় চিন্তা করি যে ক্রিকেট বোর্ড হচ্ছে খেলোয়াড়দের অভিভাবক। তাদের বিপক্ষে যাওয়াকে আমি কখনোই সঠিক মনে করিনি। আমি সব সময় মনে করি, একজন খেলোয়াড়ের সর্বোচ্চ প্রাধান্য দেয়া উচিত তার ক্রিকেট বোর্ডকে। ক্রিকেট বোর্ড একজন খেলোয়াড়ের দেখাশুনা করে।’

তিনি বলেন, ‘ক্রিকেট বোর্ডকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ যে, তারা আমাকে জাঁকজমকভাবে বিদায় জানাতে চেয়েছে। তবে আমি তো আগের দিনও বলেছি ও ক্লিয়ার ম্যাসেজ দিয়ে দিয়েছি যে, মাঠ থেকে অবসর তেমন ইচ্ছা আমার নেই। যদি আল্লাহতায়ালা তেমন সুযোগ রাখে বা আসে তখন দেখা যাবে। তবে আমার তেমন কোনও ইচ্ছা নেই। আর পাপন ভাই তো বলেই দিয়েছে যে, নিলে (সংবর্ধনা) ভালো না হলে তো কিছু করার নেই। আমি নিব কিনা সেটা তো আপনাদের বলেছি।’

নিজের ইচ্ছা হলে সময়মত অবসর নিবেন মাশরাফি। কারও জোর করে অবসরের কোনো ইচ্ছা নেই তার, ‘আমার মনে হয় অতটুকু স্বাধীনতা আমার আছে যে আমি খেলতে চাই। কারো জোর করার জন্য তো আমি অবসর নিব না বা তেমন কিছু হবে না। বাংলাদেশের অনেক ক্রিকেটার আছে যারা মাঠ থেকে অবসর নেয়নি। আমার চেয়ে অনেক বড় ক্রিকেটার ছিল, যেমন হাবিবুল বাশার সুমন, সে তো বাংলাদেশের ক্রাইসিস মোমেন্টে সব সময় রান করেছে। মাঠ থেকে তো আর সে অবসর নেয়নি। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সুমন ভাই বা আরো যারা ছিল, হয়তো সুজন ভাই করতে পেরেছে। আর এছাড়া তো খুব কম বা রেয়ার কেস। আসলে একটা সময় আমিও ভাবতাম যে মাঠ থেকে অবসর নিব কি নিব না, দেখা যাক সময়ে বলে দিবে। তবে এখন মনে হয় যে এর প্রয়োজন নেই।’

এদিকে, রবিবার বিসিবির কার্যনির্বাহী সভায় ক্রিকেটারদের আর্থিক অনেক সুবিধা বৃদ্ধি করা হয়েছে। এটিকে সাধুবাদ দিয়েছেন ম্যাশ। তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি খুব ভালো সিদ্ধান্ত। তিন ফরম্যাটে যারা খেলবে আমার কাছে মনে হয় এটা একটা খুব ভালো উদ্যোগ ক্রিকেট বোর্ডের। কারণ যারা তিন ফরম্যাটের জন্য অ্যাভেইলেবেল থাকবে তাদের জন্য অবশ্যই যারা এক ফরম্যাট বা দুই ফরম্যাট খেলে তাদের বেতন বেশি হওয়া উচিত। এমনকি টেস্ট ক্রিকেটকে বেশি প্রাধান্য দেয় তাদের বেতন বেশি করা উচিত। তাহলে আমাদের টেস্ট ক্রিকেটের চিত্রটি পরিবর্তন হতে পারে এবং আমি মনে করি এক্ষেত্রে বিসিবি অনেক সুন্দর একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে, কারণ অনেকেই এখন টেস্ট খেলতে চায় না।’

শেয়ার করুন