লবণ নিয়ে জেলা প্রশাসনের জরুরী বৈঠক, গুজবে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহ্বান

সিলেটের সকাল রিপোর্ট :: সিলেটে লবণ নিয়ে ঘটেছে লঙ্কাকাণ্ড। সোমবার সন্ধ্যা থেকে ছড়ায় গুজবের ডালপালা। ক্রেতারা লবণ কিনতে বিভিন্ন দোকানে হুমড়ি খেয়ে পড়েন। দীর্ঘ লাইনে দাড়িয়েও অনেককে লবণ কিনতে দেখা যায়।

উদ্ভূত পরিস্থিতি মঙ্গলবার সকালে সিলেটের জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে ব্যবসায়ীদের নিয়ে জরুরী বৈঠক ডাকা হয়। বৈঠকে বলা হয়, ‘সিলেটে লবণের কোন ঘাটতি নেই। এটি সম্পূর্ণ গুজব। যারা এমন অপপ্রচার রটাচ্ছে তাদের কঠোরভাবে দমন করা হবে। একই সাথে গুজব রটনাকারীদের আইননানুগ ব্যবস্থাও নেয়া হবে।’

সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলামের সভাপতিত্বে বৈঠকে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার গোলাম কিবরিয়া, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন, সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি আবু তাহের মো. শোয়েব, মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি আফজাল রশীদ, সিলেট ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মো. জিয়াউল হকসহ সিলেটের লবণের ডিলাররা উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া ব্যবসায়ী সমিতির পক্ষ থেকে নগরজুড়ে মাইকিং করে সাধারণ ক্রেতাদের বিভ্রান্ত না হওয়ার আহবান জানানোর সিদ্ধান্তও হয়েছে বলে জানান তিনি।

এদিকে, লবণ নিয়ে সৃষ্ট গুজবে কান না দেয়ার পরামর্শ দিয়েছে সরকার। মঙ্গলবার শিল্প মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে লবণের মূল‌্য নিয়ে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, দেশে সাড়ে ৬ লাখ মেট্রিক টনের বেশি ভোজ্য লবণ মজুত রয়েছে। এর মধ্যে কক্সবাজার ও চট্টগ্রামের চাষিদের কাছে ৪ লাখ ৫ হাজার মেট্রিক টন এবং বিভিন্ন লবণ মিলের গুদামে ২ লাখ ৪৫ হাজার মেট্রিক টন লবণ মজুত রয়েছে।

এতে আরো বলা হয়েছে, সারা দেশে বিভিন্ন লবণ কোম্পানির ডিলার, পাইকারী ও খুচরা বিক্রেতাদের কাছে পর্যাপ্ত পরিমাণে লবণ মজুত রয়েছে। পাশাপাশি চলতি নভেম্বর মাস থেকে লবণের উৎপাদন মৌসুম শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যে কক্সবাজার জেলার কুতুবদিয়া ও মহেশখালী উপজেলায় উৎপাদিত নতুন লবণও বাজারে আসতে শুরু করেছে।

দেশে প্রতি মাসে ভোজ্য লবণের চাহিদা কম-বেশি ১ লাখ মেট্রিক টন। অন্যদিকে লবণের মজুত আছে সাড়ে ৬ লাখ মেট্রিক টন। সে হিসেবে লবণের কোনো ধরনের ঘাটতি বা সংকট হওয়ার প্রশ্ন ওঠে না।

মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, একটি স্বার্থান্বেষী মহল লবণের সংকট রয়েছে মর্মে গুজব ছড়াচ্ছে। অধিক মুনাফা লাভের আশায় লবণের বাজার অস্থিতিশীল করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে।

উল্লেখ্য, ইতিমধ্যে শিল্প মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশনের (বিসিক) প্রধান কার্যালয়ে একটি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। লবণ সংক্রান্ত যেকোনো বিষয়ে জানাতে ০২-৯৫৭৩৫০৫ ও ০১৭১৫-২২৩৯৪৯ কল করার জন‌্য বলা হয়েছে।

শেয়ার করুন