মুশফিকের লড়াই , ম্যাচ গড়াল তৃতীয় দিনে

স্পোর্টস রিপোর্টার : ভারতের পেস বোলিং আক্রমণের মুখে দাঁড়িয়ে গেছেন মুশফিকুর রহিম। তুলে নিয়েছেন ফিফটি। ৭০ বল খেলে ৯ চারে ৫৯ রান নিয়ে অপরাজিত আছেন তিনি। এটা তার ক্যারিয়ারের ২১তম ফিফটি। দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ১৫২। ভারতের চেয়ে এখনো ৮৯ রানে পিছিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ। হাতে আছে মাত্র চার উইকেট।

এর আগে মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে ভালোভাবেই বাংলাদেশকে টানছিলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তারা দুজন ৬৯ রানের জুটিও গড়েছিলেন। এরপর পেশিতে টান খেয়ে মাঠের বাইরে চলে যান মাহমুদউল্লাহ। পরে মুশফিকের সঙ্গে এসে জুটি বাঁধেন মেহেদী হাসান মিরাজ। কিন্তু বেশিক্ষণ মুশফিককে সঙ্গ দিতে পারেননি মিরাজ। ইশান্ত শর্মার বলে বিরাট কোহলির হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান ১৫ রান করা মিরাজ। মিরাজের পর দ্রুত ফিরে যান তাইজুল ইসলাম। দিনের শেষ বলে আউট হয়েছেন তাইজুল ইসলাম (১১)। তার উইকেটটি নিয়েছেন উমেশ যাদব।

ভারতের পেস বোলিং আক্রমণের মুখে দাঁড়িয়ে গেছেন মুশফিকুর রহিম। তুলে নিয়েছেন ফিফটি। ৫৯ বল খেলে ৯ চারে ৫৩ রান নিয়ে অপরাজিত আছেন তিনি। এটা তার ক্যারিয়ারের ২১তম ফিফটি। মিরাজ আউট হওয়ার সময় বাংলাদেশের সংগ্রহ ৫ উইকেট হারিয়ে ১৩৩ রান।

এর আগে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে বিপদে পড়ে বাংলাদেশ। স্কোরবোর্ডে ১৩ রান তুলতেই ফিরে গেছেন মুমিনুল হক, সাদমান ইসলাম, মোহম্মদ মিথুন ও ইমরুল কায়েস। সেখান থেকে মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ইনিংস মেরামতের চেষ্টা করেন।

ইশান্ত শর্মা নিজের তৃতীয় শিকারে পরিণত করেন ইমরুল কায়েসকে। ১৫ বল খেলে ৫ রান করে ফিরেন তিনি। চা বিরতির আগে বাংলাদেশ দুটি উইকেট হারিয়েছিল। সেই দুটি উইকেট নিয়েছিলেন ইশান্ত শর্মা। এছাড়া মোহাম্মদ শামীর বলে শর্ট মিডউইকেটে উমেশ যাদবের কাছে ক্যাচ দিয়ে ফিরেন মিথুন। ১২ বল খেলে ৬ রান করে যান তিনি।

দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই জোড়া উইকেট হারায় বাংলাদেশ। ইশান্ত শর্মার বল মুমিনুল হকের ব্যাটের কানায় লেগে উপরে উঠে যায়। সহজেই বলটি তালুবন্দি করেন ঋদ্ধিমান সাহা। সাদমানের মতো শূন্য রানে ফিরে যান টাইগার ক্যাপ্টেন।

ইশান্ত শর্মার ‍মিডল স্ট্যাম্পের বল সাদমান ইসলামের প্যাডে লাগে। ফিল্ডারদের জড়ালো আবেদনে আউট দেন আম্পায়ার। কিন্তু রিভিউ নিয়েও বাঁচতে পারেননি সাদমান। শূন্য রানে ফিরে যান তিনি। ইশান্ত শর্মার

এর আগে বাংলাদেশের বিপক্ষে কলকাতা টেস্টের দ্বিতীয় দিনে ৯ উইকেট হারিয়ে ৩৪৭ রান সংগ্রহ করে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করে ভারত। ফলে সফরকারীদের থেকে ২৪১ রানে এগিয়ে রয়েছে টিম ইন্ডিয়। প্রথম ইনিংসে ৩০ দশমিক ৩ ওভার ব্যাট করে মাত্র ১০৬ রানে অলআউট হয় টাইগাররা।

ভারতের পক্ষে অধিনায়ক বিরাট কোহলি ১৯৪ বলে ১৮ চারে করেন ১৩৬ রান করেন। এটি কোহলির ক্যারিয়ারের ২৭তম টেস্ট সেঞ্চুরি, যার ২০টিই করলেন অধিনায়ক হিসেবে।

এছাড়া চেতাশ্বর পুজারা ৫৫, আজিঙ্কা রাহানে ৫১ ও রোহিত শর্মা ২১ রান করেন । বাংলাদেশের হয়ে আল আমিন তিনটি, ইবাদত হোসেন তিনটি ও আবু জায়েদ দুটি উইকেট পান।

দিবা-রাত্রির টেস্টের গোলাপি বলে ভারতের বিপক্ষে টেস্টের প্রথম দিন ৩০ দশমিক ৩ ওভার ব্যাট করে মাত্র ১০৬ রানে অলআউট হয় টাইগাররা। বাংলাদেশী ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতা ও নিজ বোলারদের দুর্দান্ত পারফরমেন্সে প্রথম দিনই ব্যাট হাতে নামার সুযোগ পায় ভারত।

শেয়ার করুন