কানাইঘাটে ভুয়া ডাক্তার কারাগারে

কানাইঘাট প্রতিনিধি \ কানাইঘাটে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে এক ভুয়া ডাক্তারকে ৬ মাসের কারাদন্ড প্রদান করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার ভুয়া ডাক্তার খলিলুর রহমান এক প্রতিবন্ধী শিশুকে ভুল চিকিৎসা প্রদান করে টাকা পয়সা হাতিয়ে নিচ্ছে এমন খবর পান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ বারিউল করিম খান। এর প্রেক্ষিতে বিকেল আড়াইটার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. আবুল হারিছ ও স্যানিটারি ইন্সপেক্টর আবুল কালাম আজাদকে সাথে নিয়ে খলিলুর রহমানের ফার্মেসীতে উপস্থিত হন তিনি। পরে খলিলুর রহমানকে তার চিকিৎসা প্রদানের সনদপত্র নির্বাহী কর্মকর্তা দেখতে চাইলে সে তা দেখাতে পারেনি। এতে নির্বাহী কর্মকর্তা ও প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেট বারিউল করিম খান রোগীদের ভুল চিকিৎসা প্রদানের অপরাধে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে ভুয়া ডাক্তার খলিলুর রহমানকে ইউনানী এবং আয়ুর্বেদীয় প্র্যাক্টিস অধ্যাদেশ ১৯৮৩ এর ৩২ এর ১ ধারায় মামলা দায়েরের মাধ্যমে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন। পরে সাজাপ্রাপ্ত খলিলুর রহমানকে কানাইঘাট থানায় সোপর্দ করা হয়।
ভুয়া ডাক্তার খলিলুর রহমান (৭০) জকিগঞ্জ উপজেলার বারহাল ইউনিয়নের কচুয়া গ্রামের মৃত মাওলানা আব্দুল ওয়াহিদের পুত্র। তিনি কানাইঘাট উত্তর বাজারের সাউদিয়া মার্কেটের নীচতলায় এমএক্সএন মর্ডান হারবাল ফুড লি. ঔষধ কোম্পানীর নাম লিখে অনিবন্ধিত কাগজপত্র ছাড়াই ডাক্তার পরিচয় দিয়ে রোগীদের ভুল চিকিৎসা প্রদান ও বিভিন্ন কোম্পানীর ঔষধ বিক্রি করে প্রতারণার মাধ্যমে টাকা পয়সা হাতিয়ে নিয়ে আসছিলেন।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বারিউল করিম খান জানান, ডাক্তারী সনদপত্র ছাড়াই ভুয়া চিকিৎসা প্রদানের দায়ে খলিলুর রহমানকে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড দেয়া হয়েছে। ডাক্তার পরিচয় দিয়ে এ ধরনের ভুল চিকিৎসা যারা করে যাচ্ছেন-তাদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে।

শেয়ার করুন