রবীন্দ্র স্মরণোৎসব উদযাপন উপলক্ষে সংস্কৃতিকর্মীদের প্রস্তুতি সভা

সিলেটের সকাল ডেস্ক :: কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর সিলেটবাসীর আমন্ত্রণে ‘শ্রীভূমি’ সিলেটে এসেছিলেন ১৯১৯ সালের নভেম্বরে। ২০১৯ সালে এর শতবর্ষপূর্তি হচ্ছে। সিলেটবাসীর জন্য পরম শাঘনীয় সেই স্মৃতিকে স্মরণীয় করে রাখতে তাই সিলেটে আগামী ৭ ও ৮ নভেম্বর ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার সঙ্গে আয়োজন করা হয়েছে ‘সিলেটে রবীন্দ্রনাথ: শতবর্ষ স্মরণোৎসব’। এ অনুষ্ঠানের সমাপনী পর্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রবীন্দ্র স্মরণোৎসবের এই আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর আগমণকে স্বাগত জানিয়ে এবং এই উৎসব আয়োজনকে সফল ও স্বার্থক করে তুলতে সিলেটের নাট্য ও সংস্কৃতিকর্মীদের এক প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার সন্ধ্যায় সারদা হলস্থ সম্মিলিত নাট্য পরিষদের মহড়া কক্ষে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

নাট্যজন অধ্যাপক সুনির্মল কুমার দেব মীনের সভাপতিত্বে ও সম্মিলিত নাট্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রজত কান্তি গুপ্তর পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন ‘সিলেটে রবীন্দ্রনাথ: শতবর্ষ স্মরণোৎসব’ উদযাপন পর্ষদের যুগ্ম সদস্য সচিব ও সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট সিলেটের সভাপতি আমিনুল ইসলাম লিটন, সম্মিলিত নাট্য পরিষদের সভাপতি মিসফাক আহমদ মিশু, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের কেন্দ্রীয় সদস্য শামসুল আলম সেলিম, রবীন্দ্র সংগীত শিল্পী রানা কুমার সিনহা, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট সিলেটের সাধারণ সম্পাদক গৌতম চক্রবর্তী, আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের সহ সভাপতি মোকাদ্দেস বাবুল, সাংস্কৃতিক সংগঠক বেলাল আহমেদ, নাট্য সংগঠক চম্পক সরকার, নিলাঞ্জন দাস টুকু, আমিরুল ইসলাম বাবু, শ্রুতি সিলেটের সুকান্ত গুপ্ত প্রমুখ।

সভায় সিলেটের প্রায় ৮০টি সর্বস্তরের নাট্য ও সংস্কৃতিকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। সভায় বক্তারা বলেন, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সিলেট আগমণের শতবর্ষ উদযাপনে সিলেটের সকল নাট্য ও সংস্কৃতিকর্মীরা এক গৌরব উজ্জল অনুষ্ঠানের জন্য অপেক্ষা করছে। তারা বলেন, উৎসব আয়োজনে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার আগমণ রবীন্দ্র স্মরণোৎসবকে সিলেট তথা বিশ^বাসীর কাছে স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

এ উৎসব সফল করতে অন্য যেকোন সময়ের চেয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে সংস্কৃতিকর্মীরা ‘সিলেটে রবীন্দ্রনাথ: শতবর্ষ স্মরণোৎসব’ উদযাপন পর্ষদকে সর্বাত্মক সহযোগীতা করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

শেয়ার করুন