ইকুয়েডরে জরুরি অবস্থা ঘোষণা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :: জ্বালানি তেলে সরকারি ভর্তুকি প্রত্যাহারের প্রতিবাদে ইকুয়েডরে বিক্ষোভের প্রেক্ষাপটে স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার (৩ অক্টোবর) প্রেসিডেন্ট লেলিন মোরেনো ‘জরুরি অবস্থা’ ঘোষণা করলে দেশটিতে বিক্ষোভকারী ও পুলিশের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে।

পুলিশ দেশটির রাজধানী কুইটোর ঐতিহাসিক কেন্দ্রে সরকারি দপ্তরের কাছে পাথর ও পেট্রল বোমা নিক্ষেপকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে টিয়্যার গ্যাস ছোড়ে। বাতা সংস্থা এএফপি ও বাসস এ খবর জানিয়েছে।

ইকুয়েডরের প্রেসিডেন্ট মোরেনো সাংবাদিকদের জানান, তিনি নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এবং বিশৃঙ্খলা এড়াতে এ পদক্ষেপ নিয়েছেন।

ভর্তুকি প্রত্যাহার করায় জ্বালানি তেলের দাম সর্বোচ্চ ১২০ শতাংশ বৃদ্ধির প্রতিবাদে এ বিক্ষোভ চলছে।

পরিবহন খাত এ বিক্ষোভের নেতৃত্ব দিলেও এতে শিক্ষার্থী ও অন্যান্য গ্রুপও অংশগ্রহণ করেছে। ইকুয়েডরে গত এক দশকের মধ্যে এটি হচ্ছে সর্ববৃহৎ আন্দোলন।

বিক্ষোভকারীরা দেশটির কিছু এলাকায় সরকারি পরিবহন ব্যবস্থা একেবারে অচল করে দিয়েছে। এদিকে পুলিশ ও বিক্ষোভকারীদের মধ্যে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ায় অনেক রাস্তাও বন্ধ হয়ে গেছে।

দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মারিয়া পলা রোমো জানান, এ ঘটনায় ৪৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তবে সংঘর্ষে কতজন আহত হয়েছে, সে ব্যাপারে কিছু জানা যায়নি। সংঘর্ষ চলাকালে বেশ কয়েকজন চিত্রগ্রাহক আহত হয়েছেন।

শেয়ার করুন