‘রওশনকে চেয়ারম্যান ঘোষণা গঠনতন্ত্রবিরোধী অপরাধ’

সিলেটের সকাল ডেস্ক :: যারা রওশন এরশাদকে পার্টির চেয়ারম্যান ঘোষণা দিয়েছেন তারা গঠনতন্ত্রবিরোধী অপরাধ করেছেন বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ।

রাজধানীর বনানীতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে শুক্রবার দলটির প্রেসিডিয়াম ও সংসদ সদস্যদের যৌথ সভা চলাকালে গণমাধ্যমকর্মীদের ব্রিফ করেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ এমপি ও প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক মহাসচিব জিয়া উদ্দিন আহমেদ বাবলু।

কাজী ফিরোজ রশীদ বলেন, ‘তারাই সাধারণ জনগণ এবং জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীদের মাঝে বিভ্রান্ত্রি ছড়াচ্ছেন। জাতীয় পার্টির মাঝে বিভ্রান্ত্রি যারা ছড়াচ্ছেন তাদের বিরুদ্ধে গঠনতন্ত্র মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

তিনি বলেন, ‘জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ গঠনতন্ত্রের ২০/১/ক ধারা মোতাবেক গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপিকে পার্টির চেয়ারম্যান পদে স্থলাভিষিক্ত করেছেন। পরবর্তীতে ১৭ আগস্ট প্রেসিডিয়ামের সভায় উপস্থিত সব সদস্য গোলাম মোহাম্মদ কাদেরকে বিরোধীদলীয় নেতা হতে সমর্থন দিয়েছেন। এ নিয়ে বিভ্রান্তির অবকাশ নেই।’

জাতীয় পার্টির এ প্রেসিডিয়াম সদস্য আরও বলেন, ‘পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ চিঠি দিয়ে বিরোধীদলীয় নেতা, উপনেতা ও চিফ হুইপ নির্ধারণ করে গেছেন। এটা পার্টি চেয়ারম্যানের এখতিয়ার। পল্লীবন্ধুও কখনও পার্লামেন্টারি কমিটির সভা করেননি। তাছাড়া গঠনতন্ত্রেও পালামেন্টারি কমিটির সভার কোনো কথা নেই।’

কাজী ফিরোজ রশীদ বলেন, ‘জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এবং তিনিই হবেন সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা।’

এ সময় জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক মহাসচিব জিয়া উদ্দিন আহমেদ বাবলু বলেন, ‘জাতীয় পার্টি দেশের রাজনীতিতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দল। হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের নির্দেশনায় জাতীয় পার্টি ঐক্যবদ্ধ আছে। পল্লীবন্ধু তার ছোট ভাই গোলাম মোহাম্মদ কাদেরকে গঠনতন্ত্র অনুসরণ করেই জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দিয়েছেন।’

জাতীয় পার্টির সাবেক এ মহাসচিব বলেন, ‘যিনি অন্য কাউকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ঘোষণা করেছেন তিনি অবৈধ কাজ করেছেন, যাকে ঘোষণা করেছেন তিনি এর প্রতিবাদ না করে সীমারেখা লংঘন করেছেন। যারা অবৈধ ও অগণতান্ত্রিক ঘোষণা দিয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

তিনি বলেন, ‘জাতীয় পার্টি একটি, যার চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের।’

বিকেল ৫টা থেকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদেরের সভাপতিত্বে প্রেসিডিয়াম ও সংসদ সদস্যদের যৌথ সভা শুরু হয়। এর আগে পার্টির পার্লামেন্টারি বোর্ডের সভায় সভাপতিত্ব করেন বোর্ডের সভাপতি গোলাম মোহাম্মদ কাদের।

এ সময় রংপুর-৩ আসনের উপনির্বাচনে জাতীয় পার্টির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নেয়া হয়।

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদেরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রেসিডিয়াম ও সংসদ সদস্যদের যৌথ সভায় উপস্থিত ছিলেন- কাজী ফিরোজ রশীদ, জিয়া উদ্দিন আহমেদ বাবলু, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, গোলাম কিবরিয়া টিপু, আলহাজ সাহিদুর রহমান, অ্যাডভোকেট শেখ মুহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম, অ্যাডভোকেট সালমা ইসলাম, সৈয়দ মোহাম্মদ আব্দুল মান্নান, মাসুদ পারভেজ (সোহেল রানা), হাবিবুর রহমান, সুনীল শুভ রায়, মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী, হাজি সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন, পীরজাদা শফিউল্লাহ আল মনির, লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী, অ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, ফখরুজ্জামান জাহাঙ্গীর, সৈয়দ দিদার বখ্ত, কাজী মামুনুর রশীদ, জাফর ইকবাল সিদ্দিকী, নাজমা আখতার এমপি, আব্দুস সাত্তার মিয়া, আলমগীর সিকদার লোটন, এমরান হোসেন মিয়া, মেজর (অব.) রানা মোহাম্মদ সোহেল রানা এমপি, সংসদ সদস্য আহসান আদেলুর রহমান, নুরুল ইসলাম তালুকদার।

শেয়ার করুন