জামিন পেলেন সাংবাদিক বুলবুল

সিলেটের সকাল রিপোর্ট :: সাদা পোষাকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যাওয়ার কয়েক ঘন্টার মাথায় জামিনে মুক্তি পেলেন বেসরকারি স্যাটেলাইট চ্যানেল এনটিভির সিলেট ব্যুরো প্রধান মঈনুল হক বুলবুল। শুক্রবার বিকেলে বিশেষ ব্যবস্থায় আদালতের কার্যক্রম শুরু করে শুনানী শেষে তার জামিন মঞ্জুর করেন সিলেটের অতিরিক্ত মূখ্য মহানগর হাকিম আদালতের বিচারক আবু উবায়দা।

এর আগে সকালে কানাইঘাট থানা পুলিশ তাকে সিলেট আদালতে নিয়ে আসে।  তবে ছুটির দিন হওয়াতে কোন বিচারক আদালতে ছিলেন না। পরে  বিকালে অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতের কার্যক্রম বসে।  সেখানে শুনানি শেষে আদালত বুলবুলকে জামিন প্রদান করেন।  ইলেকট্রনিক মিডিয়া জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন (ইমজা) সিলেটের সভাপতি বাপ্পা ঘোষ চৌধুরী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টায় নগরীর ওইমেন্স হাসপাতাল থেকে সাদা পোষাকে একদল অস্ত্রধারী সাংবাদিক বুলবুলকে তুলে নিয়ে যায়। এর ঘন্টাখানেক পর বুলবুলকে গ্রেপ্তারের কথা স্বীকার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। রায়হান আহমদ নামে এক ব্যক্তির দায়ের করা অর্থ আত্মসাতসহ প্রতারণা মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানায় পুলিশ।

জানা যায়, কানাইঘাট লক্ষ্মীপ্রসাদ পূর্ব ইউপির কাড়াবাল্লা গ্রামের মৃত খলিলুর রহমানের পুত্র সাবেক সাইপ্রাস প্রবাসী রায়হান উদ্দিন বাদী হয়ে গত ১১ সেপ্টেম্বর সিলেটের কানাইঘাট আমল গ্রহণকারী আদালতে বিদেশ পাঠানোর নামে ৮ লক্ষ টাকা প্রতারণার মাধ্যমে আত্মসাতের অভিযোগের ঘটনায় এনটিভির সিলেটের ব্যুারো চিফ এবং সিলেট বারের আইনজীবী এডভোকেট মঈনুল হক বুলবুলের বিরুদ্ধে একটি দরখাস্ত মামলা দায়ের করেন। বিজ্ঞ আদালত দরখাস্ত মামলাটি এফআইআর হিসেবে গণ্য করে আসামীকে গ্রেফতার করার জন্য কানাইঘাট থানা পুলিশকে নির্দেশ প্রদান করেন।

মামলার বাদী রায়হান উদ্দিনের দাবী- তিনি সাইপ্রাসে থাকা অবস্থায় সাংবাদিক মঈনুল হক বুলবুলের পুত্র সাইপ্রাস প্রবাসী আব্দুল্লাহ শাওনের সাথে তার পরিচয় হয়। পরিচয়ের সূত্র ধরে ২০১৭ সালের জানুয়ারী মাসে আব্দুল্লাহ শাওন জানায়, তার পিতা মঈনুল হক বুলবুল ইউরোপের বিভিন্ন দেশে লোক পাঠান। সেই সূত্র ধরে বুলবুলের সাথে তার যোগাযোগ হয়। সাইপ্রাস থেকে আকাশপথে ফ্রান্সে পাঠানোর জন্য বুলবুল ৮ লক্ষ টাকার চুক্তি করেন রায়হান উদ্দিনের সাথে ।

চুক্তির সেই টাকা সাংবাদিক বুলবুলের ইসলামী ব্যাংক, জিন্দাবাজার শাখার মাধ্যমে ২ লক্ষ ও বাকি ৬ লক্ষ টাকা স্বজনদের মাধ্যমে বুলবুলের কাছে পাঠান। কিন্তু, কথামতো তিনি রায়হানকে সাইপ্রাস থেকে ফ্রান্সে না পাঠালে ২০১৭ সালের এপ্রিল মাসে রায়হান সাইপ্রাস থেকে দেশে চলে আসেন এবং তার পাওনা ৮ লক্ষ টাকা বুলবুলের কাছে ফেরত চান। তিনি টাকা না দিয়ে নানা ধরনের টালবাহানার আশ্রয় নেন বলে অভিযোগ করে রায়হান উদ্দিন গত ১১ সেপ্টেম্বর আদালতে সাংবাদিক বুলবুলের বিরুদ্ধে এ মামলা দায়ের করেন।

শেয়ার করুন