আল কুরআনের অধ্যয়ন ও তিলাওয়াত ব্যাপকতর করতে হবে:ড. মাওলানা মুশতাক আহমদ

 

ডেস্ক রিপোর্ট:ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের উপ-পরিচালক, গবেষক শায়খ ড. মাওলানা মুশতাক আহমদ বলেছেন, ‘আল কুরআন বিশুদ্ধ ভাবে তিলাওয়াতের মধ্যে মানুষের আত্মার খোরাক রয়েছে।এ গ্রন্থ মানুষের সব ধরণের ব্যাধির মহৌষধ। যুগ যুগ ধরে এ গ্রন্থ মানুষের সকল সমস্যার সমাধান দিয়ে আসছে। তাই এ গ্রন্থের তিলাওয়াত ও অধ্যয়ন ব্যাপকতর করতে হবে।’
তিনি বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সিলেট জেলা পরিষদ মিলনায়তনে আল কোরআন শিক্ষা পরিষদের ১৫ তম কেন্দ্রীয় পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ ও সনদ প্রদান উপলক্ষে আয়োজিত সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। সেমিনারের মূল প্রতিপাদ্য ছিল- ‘বিশুদ্ধ ভাবে কুরআন তিলাওয়াতের অপরিহার্যতা, আজকের বাস্তবতা ও আমাদের করণীয়’।
প্রধান অতিথি সিলেটে বিশুদ্ধ কুরআন তিলাওয়াত বিস্তারে আল্লামা আব্দুল লতিফ চৌধুরী ফুলতলী ও মাওলানা ক্বারী সিরাজুল ইসলাম সহ এ অঞ্চলের ধর্মীয় নেতাদের অসামান্য অবদানের কথা স্মরণ করে বলেন,’ কিরাআতের এই ধারাবাহিকতা মক্কা থেকেই বাংলাদেশে বিস্তার লাভ করেছে। তাই, এর শেকড় অনেক গভীরে। এ কর্মসূচি যত বিস্তৃত হবে, ততই জাতির কল্যাণ।
তিনি আরও বলেন, ‘মুসলিম শাসনামলে এ উপমহাদেশ অনেক সমৃদ্ধ ছিল। তাই, ভাস্কোদাগামার মাধ্যমে বিপুল সংখ্যক পশ্চিমা সে সময় এদেশে চাকরি ও ব্যবসার জন্য এদেশে আসতো। আজ আমাদের ভ্রান্ত নীতির কারণে এবং উল্টো আমরা তাদের অভিবাসন প্রার্থী।’
আল কোরআন শিক্ষা পরিষদের সভাপতি শায়খুল কোররা মাওলানা সিরাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন, গবেষক-কলামিস্ট মাওলানা মুখলিছুর রহমান। তিনি তাঁর প্রবন্ধে দেশের সকল শিক্ষা ব্যবস্থায় বিশুদ্ধভাবে কুরআন তিলাওয়াত শিখন ও তা অনুশীলনের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।
হাফিজ মাওলানা ছহুল আহমদ ও ক্বারী মাওলানা রাসেল শিকদারের যৌথ সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সিলেট প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ইকবাল সিদ্দিকী, ইডেন গার্ডেন স্কুল এন্ড কলেজের প্রিন্সিপাল অধ্যাপক ফরিদ আহমদ,,দৈনিক ইত্তেফাকের সিলেট ব্যুরো প্রধান হুমায়ূন রশীদ চৌধুরী ও সিলেট প্রেসক্লাবের সাবেক সেক্রেটারি মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম, প্রিন্সিপাল হাফিজ মাওলানা মনজুরে মাওলা, বিশিষ্ট আইনজীবি এডভোকেট আবু নোমান,বানিয়াচং আলিয়া মাদ্রাসার মুহাদ্দিস মুফতী মুবাশ্বির আহমদ খান, দারুল ফালাহ’র পরিচালক হাফিজ মাওলানা শিব্বির আহমদ, মুহাদ্দিস মাওলানা আবু ইউসুফ ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী জসিম উদ্দিন প্রমুখ। অনুষ্ঠানে ইসলামী সংগীত পরিবেশন করে হলি ভয়েজ কালচারাল গ্রুপ।
সেমিনার শেষে ১৫ তম কেন্দ্রীয় পরীক্ষায় প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অর্জনকারী দেখে শুভেচ্ছা স্মারক হিসেবে ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।বিজয়ী শিক্ষার্থীরা হল: সনদ জামাত (পুরুষ) মামুন আহমদ, আবদুল ওয়াকীল খান ও তাফাজ্জুল হক এবং (মহিলা) শিফা আক্তার, ফারিয়া জান্নাত অপি ও তাবাসসুম আক্তার সুমাইয়া।
খামিছ জামাত (মহিলা) ইমা আক্তার, রুমা আক্তার ও নাফিসা খানম এবং (পুরুষ) ছাব্বির আহমদ, ইজহারুল ইসলাম সাদী ও ইকবাল হুসাইন।
জামাতে রাবে: শাহরিয়ার আহমদ, সোহাইল আহমদ ও আবদুল মুমিন, জামাতে ছালিছ: সুহাইমা হুসাইন চৌধুরী, শফিউর রহমান ও আব্দুল বাসিত, জামাতে ছানী: আইমদ ইয়াহয়া হুসাইন আরহাম, নাফিম ওনায়েম ও আছিয়া শেখ, জামাতে আউয়াল (ক গ্রুপ) নাহি মুনকার নাহিন, হুযাইম হুসাইন চৌধুরী ও হাবিবা আক্তার এবং আউয়াল (খ গ্রুপ) আহমদ ইব্রাহীম হাসান ইমাম, তাছবীর আহমদ ও আইনুল হক।-

শেয়ার করুন