ব্রিটেনে দূতাবাসের মাধ্যমে আগামী ডিসেম্বরে স্মার্টকার্ড প্রদান ও পাসপোর্টের মেয়াদ ১০ বছর করার সিদ্ধান্ত.

সাজু আহমদ: ব্রিটেনে প্রবাসীদের দাবির মুখে বাংলাদেশ সরকার সম্প্রতি দূতাবাসের মাধ্যমে আগামী ডিসেম্বরে স্মার্টকার্ড প্রদান ও পাসপোর্টের মেয়াদ ১০ বছর করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এতদিন বিলেত প্রবাসী ব্রিটিশ বাংলাদেশিরা স্মার্ট কার্ড থেকে বঞ্চিত ছিলেন যার মাধ্যমে বাংলাদেশ এ মোবাইল সিম, জায়গা সম্পত্তি কেনাবেচাসহ প্রায় ২৭টি কাজে এই কার্ডটি বাংলাদেশে ব্যবহার করা হয়।

এই স্মার্ট কার্ড ও বাংলাদেশি পাসপোর্টের মেয়াদ ১০ বছর করার দাবিতে সেন্টার ফর ব্রিটিশ বাংলাদেশি পলিসি ডায়ালগ (সিবিপিডি) দাবি জানিয়ে আসছিল। তাদের দাবির অগ্রগতি জানাতে গত ৬ আগস্ট এক সংবাদ সম্মেলনে আযোজন করে সংগঠনটি।

এই সংগঠনটি গত ৮ মার্চ ২০১৯ সালে লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে সারাদেশে আরো বিভিন্ন সংগঠনের সাথে জনমত সৃষ্টি ও সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তরের স্বারকলিপি প্রদানের কর্মসূচি হাতে নেয়। এর অংশ হিসাবে তারা ইউরোপের বেশ কয়েকটি শহর লন্ডন, ম্যানচেস্টার, ওল্ডহাম, বার্মিংহামসহ বিভিন্ন শহরে তাদের কর্মসূচি পালন করেন এবং লন্ডনে বাংলাদেশি হাই কমিশনার এর সাথে দেখা করে তাদের যুক্তি তুলে ধরেন। এর প্রেক্ষিতে গত ২৯ জুলাই বাংলাদেশ হাইকমিশনে বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশনার ড: রফিকুল ইসলাম আগামী ডিসেম্বর মাস থেকে ব্রিটেনে ভোটার তালিকায় নাম অন্তর্ভুক্তি ও স্মার্টকার্ড প্রদানের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানান। এ ব্যাপারে শিগগিরই নির্বাচন কমিশনের একটি প্রতিনিধি দল লন্ডনে আসবেন বলে জানানো হয়।

এই সংবাদ সম্মেলনে আরো জানানো হয় বাংলাদেশ সরকার ইতিমধ্যে বাংলাদেশি পাসপোর্ট ৫ থেকে ১০ বছর মেয়াদ করার সিদ্ধান্ত নেয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পেশ করেন ব্যারিস্টার আবুল কালাম চৌধুরী। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরসহ আরো বক্তব্য রাখেন সলিসিটর আবুল কালাম,  ব্যারিস্টার আতাউর রহমান, ব্যারিস্টার তারেক চৌধুরী, ব্যারিস্টার চৌধুরী হাফিজুর রহমান, ব্যারিস্টার এনামুল হক এবং সলিসিটর সহুল আহমদ মকু. সংবাদ সম্মেলনে ব্রিটেনের সকল সংগঠনকে যার যার অবস্থান থেকে এক সাথে এই দাবি তুলে ধরার জন্য ধন্যবাদ জানানো হয়।

শেয়ার করুন