কানাইঘাটে সুরমা ও লোভা নদীর পানি বেড়েছে , কয়েক সহস্রাধিক মানুষ পানিবন্দি

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও অব্যাহত বৃষ্টিপাতে সিলেটের কানাইঘাটে সুরমা ও লোভা নদীর পানি অব্যাহত ভাবে বাড়ছে। শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত কানাইঘাট সুরমা নদীর পানি বিপদসীমার ১৫৭ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। সুরমা-লোভা সহ অন্যান্য নদ-নদীর পানি অব্যাহত ভাবে বেড়ে যাওয়ার কারনে নদী ভাঙ্গণ তীব্র আকার ধারণ করেছে। এছাড়া উপজেলার বেশিরভাগ ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এ কারণে কয়েক হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।

কানাইঘাট-দরবস্ত সড়কের নিচু এলাকা দিয়ে বন্যার পানিতে প্লাবিত হওয়ার পাশাপাশি সড়কের বিকল্প নকলা বেইলি ব্রীজ পানিতে তলিয়ে যাওয়ার কারণে সিলেটের সাথে কানাইঘাট উপজেলা সদরের সব ধরনের যান চলাচল শনিবার সকাল থেকে বন্ধ রয়েছে। এছাড়াও কানাইঘাট-সুরাইঘাট সড়কের বিভিন্ন অংশ পানির নিচে তলিয়ে যাওয়ার ঝুঁকি নিয়ে যানবাহন চলাচল করছে এবং সড়কের বিভিন্ন স্থানে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। তাছাড়া পানিতে প্লাবিত হয়েছে পৌর সদরও।

লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউপি চেয়ারম্যান জেমস্ লিও ফারগুসন নানকা জানান, তার ইউনিয়নের সব নদ-নদীর পানি অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাওয়ায় দক্ষিণ লক্ষীপ্রসাদ, উত্তর লক্ষীপ্রসাদ, কুকুবাড়ি, কুওরঘড়ি, গৌরিপুরের একাংশ, নিহালপুর, হালাবাদি, আগফৌদ, কালিনগর, বড়বন্দ, গোরকপুর, সোনাতনপুঞ্জি, বাউরভাগ ১ম, ২য়, ৩য় খন্ড ও বারোফনী গ্রামের অধিকাংশ এলাকা বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে। প্রায় দেড় শতাধিত বাড়িঘর বানের পানিতে আক্রান্ত হয়েছে।

লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউপি চেয়ারম্যান ডা: ফয়েজ আহমদ জানান, তার ইউনিয়নের লোভা ও সুরমা নদীর তীব্র ভাঙ্গণের পাশাপাশি বন্যা পরিস্থিতি মারাত্মক অবনতি ঘটেছে। মেছা, সতিপুর, বাজেখেল, কান্দলা, ভাল্লুকমারা, খালাইয়ুরা, উজান ভারাপৈত, নক্তিপাড়া, ছোটফৌদ, নারাইনপুর, কাড়াবাল্লা পূর্ব-পশ্চিম, কেউটি হাওর এবং কান্দিগ্রামের অধিকাংশ এলাকার রাস্তাঘাট তলিয়ে গেছে। অনের বাড়ি ঘর পানিতে আক্রান্ত হওয়ায় মেছা সরকারি আশ্রয় কেন্দ্রে অবস্থান করছেন।

এছাড়া বড়চতুল ইউনিয়ন, দিঘীরপাড় পূর্ব, সাতবাঁক, কানাইঘাট সদর, বাণীগ্রাম, ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়ন ও কানাইঘাট পৌরসভার নি¤œাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার তানিয়া সুলতানা ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) লুসিকান্ত হাজং শনিবার বিকেলে কানাইঘাটের বন্যা কবলিত বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করেন এবং বন্যা পরিস্থিতির সার্বিক বিষয় তদারকি করছেন।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শীর্ষেন্দু পুরকায়স্থ জানিয়েছেন, কানাইঘাটের বন্যা পরিস্থিতির প্রতিনিয়ত সংবাদ জেলা প্রশাসক মহোদয়কে অবহিত করা হচ্ছে। সার্বক্ষণিক ক্ষয়ক্ষতির বিষয়টি মনিটরিং করা হচ্ছে। সরকারি ভাবে শনিবার বন্যা দূর্গতদের জন্য ৪টন চাল বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে এবং তা দ্রুত বিতরণ করা হবে।

শেয়ার করুন