ওসি মোয়াজ্জেম কারাগারে

ফাইল ছবি

সিলেটের সকাল ডেস্ক :: সোনাগাজী থানার প্রাক্তন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেনকে কারাগারে পাঠিয়েছেন সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনাল।

সোমবার তার জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোহাম্মদ আসসামছ জগলুল হোসেন কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। আগামী ৩০ জুন এ মামলায় চার্জ গঠনের শুনানির দিন ঠিক করেন এবং ওই দিন আসামিকে ট্রাইব্যুনালে হাজির করার আদেশ দেওয়া হয়।

ফেনীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির জবানবন্দির ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় তাকে গতকাল রোববার গ্রেপ্তার করা হয়।

এর আগে সোমবার দুপুর ১২টা ২৬ মিনিটে ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনকে প্রিজন ভ্যানে করে মহানগর দায়রা জজ আদালতের সামনে হাজির করে পুলিশ। ওই সময় সাংবাদিকদের উপস্থিতির কারণে তাকে প্রিজন ভ্যান থেকে না নামিয়ে সিএমএম আদালতের হাজতখানায় নেয় পুলিশ।

পরে বেলা ২টার দিকে সিএমএম কোর্টের হাজতখানা থেকে আবার মহানগর দায়রা জজ আদালতের সামনে প্রিজন ভ্যানে করে আনা হয়। এরপর তাকে হাতকড়া ছাড়াই প্রিজন ভ্যান থেকে নামিয়ে লিফটে করে মহানগর দায়রা জজ আদালত ভবনের ৬ তলায় অবস্থিত সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনালে নেওয়া হয়।

তখন প্রায় ২টা ২০ মিনিট। প্রিজন ভ্যান থেকে আদালতে ওঠানোর সময় প্রিন্ট এবং ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা ছবি তুলতে ও ভিডিও ধারণ করতে গেলে পুলিশ তাতে বাধা দেয়। এতে অনেক সাংবাদিক আহতও হন। মোয়াজ্জেম হোসেনকে আদালতে ওঠানোর পর তিনি কাঠগড়ার সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। তখন তার চোখে সানগ্লাস, মুখে দাড়ি, পরণে প্যান্ট এবং গায়ে পোলো শার্ট ছিল। তাকে কিছুটা বিচলিত দেখাচ্ছিল। ট্রাইব্যুনালের ভেতরেও পুলিশ তাকে ঘিরে ছিল।

বিচারক আগে থেকে এজলাসে ছিলেন। তাই মোয়াজ্জেম হোসেনকে কাঠগড়ায় ওঠানোর দুই মিনিট পরই এ মামলার শুনানি শুরু হয়। প্রথমে আদালতের পেশকার শামীম আল মামুন আসামিকে কাঠগড়ায় উঠতে বললে তিনি কাঠগড়ায় দাঁড়ান।

শেয়ার করুন