অল্পের জন্য সংঘর্ষ এড়ালো রুশ ও মার্কিন যুদ্ধজাহাজ

স্পোর্টস ডেস্ক :: অল্পের জন্য সংঘর্ষ এড়ালো যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার দুই যুদ্ধজাহাজ। পূর্ব চীন সাগর ও ফিলিপাইন সাগরের মাঝামাঝি জায়গায় এই দুর্ঘটনার মুখে পড়তে যাচ্ছিল রাশিয়ার প্যাসিফিক ফ্লিটের অ্যাডমিরাল ভিনোগ্রাদভ ও যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনীর ইউএসএস চ্যান্সেলরসভিলে।

শুক্রবার (৭ জুন) মস্কো সময় ভোর সাড়ে ৬টার দিকে (বাংলাদেশ সময় সাড়ে ৯টা) এ পরিস্থিতি তৈরির জন্য উভয়পক্ষই পরস্পরকে অভিযুক্ত করছে। রাশিয়া বলছে ঘটনাটি পূর্ব চীন সাগরে ঘটেছে। আর যুক্তরাষ্ট্র বলছে ফিলিপাইন সাগরে (পূর্ব চীন সাগরের দক্ষিণে) ঘটেছে ঘটনাটি।

রাশিয়ার প্যাসিফিক ফ্লিট বলছে, অ্যাডমিরাল ভিনোগ্রাদভের মাত্র ১৬০ ফিট সামনে দিয়ে যাচ্ছিল ইউএসএস চ্যান্সেলরসভিলে। মার্কিন যুদ্ধজাহাজটির সঙ্গে সংঘর্ষ এড়াতে জরুরিভিত্তিতে গতি ও দিকবদল করতে বাধ্য হয় ভিনোগ্রাদভ।

তারা আরও দাবি করেছে, ঘটনাটির প্রতিবাদ জানিয়ে মার্কিন যুদ্ধজাহাজটির কমান্ডারের কাছে লিখিত পাঠানো হয়েছে।

অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনীর প্যাসিফিক ফ্লিটের সেভেনথ ফ্লিট কমান্ডার ক্লেটন ডস বলেছেন, ঘটনাটির জন্য রুশ যুদ্ধজাহাজই দায়ী। তারা ‘অনিরাপদ ও অপেশাদার’ আচরণ করেছে।

রুশ প্যাসিফিক ফ্লিটের বক্তব্য ‘অপপ্রচার’ মন্তব্য করে তিনি বলেন, ভিনোগ্রাদভ উল্টো চ্যান্সেলরসভিলের বিরুদ্ধে অনিরাপদ দিকবদল করে ৫০-১০০ ফিটের দূরত্বে চলে আসে।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বলছে, দু’টি যুদ্ধজাহাজ এতো কাছে চলে যাওয়ায় দুর্ঘটনা এমনকি কেউ জখম হওয়ার শঙ্কাও ছিল।

কী কারণে এই ঘটনাটি ঘটে থাকতে পারে, সে বিষয়ে স্পষ্ট কোনো তথ্য না মিললেও সংবাদমাধ্যম বলছে, সেখানে এমন কোনো পরিস্থিতি ছিল না যে যুদ্ধজাহাজ দু’টি এতো কাছে চলে আসতে পারে। জাহাজ দু’টি পরস্পরকে অভিযুক্ত করলেও উভয়পক্ষেরই দোষ থাকতে পারে। এমনও হতে পারে, যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্র বাহিনীর কার্যক্রমকে ‘চ্যালেঞ্জ’ জানানোর সক্ষমতা দেখাতে রাশিয়ার পরিকল্পিত নীতির ফল হতে পারে এটি।

কৃষ্ণ সাগরে প্রায়ই এ ধরনের ঘটনা ঘটে থাকে। মস্কো পুরো কৃষ্ণ সাগরকে নিজেদের জলসীমা মনে করে। তবে তুরস্কসহ যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন ন্যাটোভুক্ত দেশগুলো এ ব্যাপারে বরাবরই দ্বিমত দেখিয়ে আসছে।

কিন্তু প্রশান্ত মহাসাগরের কাছের জলসীমায় এ ধরনের ঘটনা কমই ঘটে থাকে। শুক্রবার তেমন ‘অস্বাভাবিক’ ঘটনারই একটি ঘটলো।

শেয়ার করুন