‘সিলেটে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি তুলনামূলক ভালো’

সিলেটের সকাল ডেস্ক :: সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার পরিতোষ ঘোষ বলেছেন, ‘পূণ্যভূমি সিলেটের মানুষ খুবই শান্তিপ্রিয়। দেশের অন্যান্য অঞ্চলের চেয়ে এখানে অপরাধ কর্মকান্ড তুলনামূলক কম। সাম্প্রতিক সময়ে এখানে নারী নির্যাতনের ঘটনা উদ্বেগের কারণ হয়েছে। ছুটির দিনগুলোতে ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে। সিলেট মহানগর পুলিশ এসব অপরাধ থামাতে বদ্ধপরিকর। জনগণকেও এগিয়ে আসতে হবে।’

সিলেট নগরীর কাজীটুলা ওয়েলফেয়ার সোসাইটির উদ্যোগে শনিবার রাত ৯টায় সন্ত্রাস নির্মূল ও মাদকবিরোধী মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিতোষ ঘোষ এসব কথা বলেন। দায়িত্বগ্রহণের পর প্রথমবারের মতো কোন সামাজিক সংগঠনের পক্ষ থেকে আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক সভাতে এটিই প্রথমবারের মতো তাঁর যোগদান উল্লেখ করেন তিনি। এজন্য তিনি কাজীটুলা ওয়েলফেয়ার সোসাইটির কর্মকর্তাদের বিশেষ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

এসময় তিনি আরও বলেন, ‘পুলিশ সম্পর্কে মানুষের মনে একটি ধারণা কাজ করে। মানুষ ভাবে পুলিশের কাছে গেলে টাকা লাগে। সেদিন আর নাই এখন পুলিশের কাছে গেলে কোন টাকা লাগেনা। সিলেট মহানগর পুলিশের প্রত্যেকটি থানা ও কর্মকর্তাদের দরজা জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত।’

তিনি আরোও বলেন, ‘সিলেটের মানুষের মধ্যে পুলিশ থেকে দূরে থাকার প্রবণতা দেখা যায়। এটা কি কারণে, জানিনা। সিলেটবাসীকে বলছি পুলিশকে বন্ধু ভাবুন। পুলিশ আপনার আইনী অধিকার প্রদানে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। যেকোনো প্রয়োজনে পুলিশকে ডাকুন। বর্তমান যুগে আপনি ডিজিটাল সহযোগিতাও নিতে পারেন। নিমিষেই পুলিশকে অভিযোগ জানাতে পারেন। আমাদের নাম্বারগুলো সামাজিক মাধ্যমগুলোতে সংযুক্ত রয়েছে। ফেসবুকে নগর পুলিশের পেইজ আছে। এসব মাধ্যমেও আপনারা সেবা নিতে পারেন।’

তিনি বলেন, ‘দুঃখজনক হলেও সত্য বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের ইতিহাসে বোমা বিস্ফোরণের সাথে সিলেটের নাম জড়িয়ে গেছে। জঙ্গিবাদের শুরুর দিকে যে কয়টি বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে সেগুলোর তালিকাতে সিলেটের নামও আছে। সেজন্য সিলেটের প্রতিটি এলাকার মানুষকে এ বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। বাসা ভাড়া দেয়ার সময় তথ্য ও পরিচয় যাচাই বাছাই করে দিতে হবে।’

কাজীটুলা ওয়েলফেয়ার সোসাইটির সাবেক সভাপতি শামসুল আলমের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মখলিছুর রহমান বাবলুর পরিচালনায় সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সিলেট মহানগর শাখার সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ, সোসাইটির সভাপতি ও সাবেক কাউন্সিলর ফয়জুল আনোয়ার আলোয়ার, ১৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রাশেদ আহমেদ, কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ সেলিম মিঞা, সোসাইটির উপদেষ্টা জিয়াউর রহিম মুর্শেদ, উপদেষ্টা আব্দুল মালিক সুজন, সিনিয়র সহ-সভাপতি কামরান আহমদ কামাল।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কাজীটুলা ওয়েলফেয়ার সোসাইটির সহ-সাধারণ সম্পাদক পারভেজ খাঁন, সাংগঠনিক সম্পাদক আজাদ খাঁন। বিভিন্ন এলাকার সমস্যা উল্লেখ করে বক্তব্য রাখেন ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি তারেক আহমদ চৌধুরী, ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম সৌমিক, অন্তরঙ্গ সমাজকল্যাণ সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মো. আকবর, অগ্রদূত সমাজকল্যাণ সংস্থার সাধারণ সম্পাদক জাহিদুর রহমান পাপ্পু। সভায় ১৭ নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকার মুরব্বীয়ান, যুবকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে সভায় এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে পুলিশ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের কাছে ১৭ নং ওয়ার্ডের মাদকের আস্তানাগুলোর তালিকা প্রদান করা হয়। ১৭ নং ওয়ার্ডের ছিনতাই ঝুঁকিতে থাকা স্থানগুলোর জন্যও পুলিশী টহল বাড়ানো এবং আল্লাহু পয়েন্টে পুলিশ ক্যাম্প স্থাপনের দাবিও জানানো হয়েছে।

শেয়ার করুন