মুক্তি পেলেন মিয়ানমারে দণ্ডিত দুই রয়টার্স সাংবাদিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :: রাখাইন রাজ্যে সংখ্যালঘু মুসলিম রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে নিপীড়নের খবর সংগ্রহ করতে গিয়ে আটক বার্তা সংস্থা রয়টার্সের দুই সাংবাদিক মুক্তি পেয়েছেন। ৫০০ দিনের বেশি সময় কারাভোগের পর মুক্তি পেলেন তারা।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে রয়টার্স জানিয়েছে, মঙ্গলবার ইয়াঙ্গুনের শহরতলীর একটি কারাগার থেকে তারা মুক্তি পেয়েছেন।

তথ্য সংগ্রহের সময় রাষ্ট্রীয় গোপনীয়তা আইন ভাঙার অভিযোগে সাংবাদিক ওয়া লোন (৩২) এবং কিয়াও সো ওকে (২৮) গত বছর সেপ্টেম্বরে সাত বছরের কারাদণ্ড দেয় ইয়াংগনের জেলা জজ আদালত। পরে হাইকোর্টেও ওই রায় বহাল থাকে।

এসবের পরিপ্রেক্ষিতে সরকারের কাছে দুই সাংবাদিকের সাধারণ ক্ষমা চেয়ে আবেদন করেন তাদের স্ত্রী। চিঠিতে তারা বলেন, যদিও তারা কোনও অপরাধ করেননি, তবু পরিবারের কথা ভেবে যেন তাদের মুক্তি দেওয়া হয়। এই প্রক্রিয়াতেই অন্যান্য বন্দীদের সঙ্গে মুক্তি পেলেন রয়টার্সের ওই দুই সাংবাদিক।

তবে রয়টার্স দাবি করছিল, দুই সাংবাদিক কোনো অপরাধ করেননি।

মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে ২০১৭ সালের আগস্টে বেশ কয়েকটি পুলিশ ও সেনা চেক পোষ্টে হামলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে অভিযান শুরু করে সেনাবাহিনী। অভিযানের নামে সেখানে রোহিঙ্গা নারীদের ধর্ষণ, নির্বিচারে গুলি করে রোহিঙ্গাদের হত্যা ও তাদের বাড়ি-ঘর আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়া হয়। এতে সাত লাখের বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে প্রতিবেশী বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়।

২০১৭ সালের ডিসেম্বরে রাখাইনে ১০ রোহিঙ্গাকে গুলি করে হত্যার ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদন তৈরি করতে যান ওই দুই সাংবাদিক। এরপরেই তাদের আটক করা হয়। তাদের মুক্তির জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রচেষ্টার প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেছেন সাংবাদিক ওয়া লোন।

তিনি বলেন, আমি খুব খুশি। আমার পরিবার এবং সহকর্মীদের সঙ্গে দেখা করার জন্য আমি অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছি। আমি নিউজরুমে যাওয়ার জন্য আর অপেক্ষা করতে পারছি না। হাত নেড়ে হাসিমুখে কথা বলেছেন অপর সাংবাদিক কিয়াও সোয়ে ও।

শেয়ার করুন