টাইম পত্রিকায় মোদীকে নিয়ে বিতর্কিত প্রচ্ছদ নিবন্ধ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :: যুক্তরাষ্ট্রের টাইম পত্রিকার আন্তর্জাতিক সংস্করণে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে নিয়ে একটি বিতর্কিত প্রচ্ছদ নিবন্ধ প্রকাশ করা হয়েছে। প্রচ্ছদের শিরোনাম করা হয়েছে, ‘ভারতের বিভাজক গুরু’ (ইন্ডিয়াজ ডিভাইডার ইন চিফ)। আগামী ২০ মে সংখ্যার এই প্রচ্ছদ নিবন্ধটি লিখেছেন, ভারতীয় সাংবাদিক তাভলিন সিং ও পাকিস্তানী রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ী সলমন তাসিরের পুত্র বৃটিশ লেখক ও সাংবাদিক অতীশ তাসির। টাইমের এই প্রচ্ছদটি নির্বাচনের মওসুমে বিতর্কে ইন্ধন যোগাবে বলে মনে করছেন পর্যবেক্ষকরা। ইতিমধ্যেই এই লেখাটি নিয়ে কংগ্রেস মোদীর বিরুদ্ধে প্রচারে ঝাঁপিয়ে পড়েছে। প্র”চ্ছদের শিরোনামই স্পষ্ট করে দিয়েছে, নিবন্ধটিতে মোদীর সমালোচনা করা হয়েছে তীর্যকভাবে। লেখায় উঠে এসেছে, মব লিঞ্চিং, যোগী আদিত্যনাথকে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ ও স্বাধ্বী প্রজ্ঞা ঠাকুরকে প্রার্থী করার মত বিষয়ও। বলা হয়েছে, বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্র কি পারবে আরও পাঁচ বছরের জন্য মোদী সরকারকে ফিরিয়ে আনতে?

ফের একবার মোদী সরকার ক্ষমতায় এলে বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্রের পক্ষে তা সহ্য করা সম্ভব হবে কি না, তা নিয়েও সন্দেহ প্রকাশ করা হয়েছে।

নিবন্ধটিতে ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরুর ধর্মনিরপেক্ষতার নীতি ও আদর্শের সঙ্গে নরেন্দ্র মোদীর আমলের সামাজিক চাপের চলমান নীতির সঙ্গে তুলনা করে বলা হয়েছে, মোদী কোনও অবস্থাতেই হিন্দু ও মুসলমানদের মধ্যে ভ্রাতৃত্বের বন্ধন তৈরির কোনও আগ্রহই দেখান নি। সেইসঙ্গে লেখক অতীশ গুজরাটে মোদী মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন সময়ে যে দাঙ্গা হয়েছিল, যাতে প্রচুর মানুষ মারা গিয়েছিলেন সেকথাও উল্লেখ করেছেন। লেখক আরও বলেছেন, ভারতের এই বৃহত্তম গণতন্ত্র আগের চেয়ে অনেক বেশি বিভাজিত। গোটা নিবন্ধটিতেই হিন্দু ও মুসলমানদের সম্পর্ক নিয়েই আলোকপাত করা হয়েছে সেইসঙ্গে হিন্দু অনুরাগীর ভূমিকা নেবার জন্য মোদীকেই দায়ী করা হয়েছে। বলা হয়েছে, মোদীর জমানায় সব শ্রেণির সংখ্যালঘু মানুষ, সে উদারপন্থী হোক বা নিম্নবর্গের মুসলিম অথবা খ্রিস্টান, সকলকেই হিংসার শিকার হতে হয়েছে।

অতীশ লিখেছেন, বিশ্বের গণতান্ত্রিক দেশগুলির মধ্যে ভারতই প্রথম জনমোহিনী রাজনীতির ফাঁদে পা দিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আমলে ভারতের বুনিয়াদি শর্ত, দেশ গঠনের কারিগর, সংখ্যালঘু সম্প্রদায়, দেশের প্রাতিষ্ঠানিক মর্যাদা, বিশ্ববিদ্যালয়, কর্পোরেট দুনিয়া এবং সংবাদমাধ্যম সব ক্ষেত্রেই অবিশ্বাসের বাতাবরণ তৈরি হয়েছে বলেও দাবি করা হয় ওই নিবন্ধে। অবশ্য এবারই প্রথম টাইম পত্রিকা মোদীকে নিয়ে তীব্র আক্রমণাত্মক লেখা প্রকাশ করেছে। এর আগেও ২০১২ সালে মোদীকে নিয়ে বিতর্কিত আলোচনা প্রকাশ করেছিল। টাইম পত্রিকার মতে, মোদী হলেন একজন বিতর্কিত, উচ্চাকাঙ্খী এবং বিচক্ষণ রাজনীতিবিদ। তবে সোস্যাল মিডিয়াতে এই খবরটি প্রকাশিত হওয়ার পর থেকে নিবন্ধটির লেখক অতীশকে নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। অবশ্য টাইমের নিবন্ধে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীরও সমালোচনা করা হয়েছে।

বলা হয়েছে, পরিবার তন্ত্র ছাড়া আর বিশেষ কিছু দিতে পারেন নি তিনি। বিজেপি বিরোধীদেরও তীব্র সমালোচনা করে ওই নিবন্ধে লেখা হয়েছে, মোদীর ভাগ্য ভাল যে বিরোধী পক্ষ দুর্বল। কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন বিরোধী জোট একেবারেই সুশৃঙ্খল নয়। মোদীকে পরাজিত করতে তেমন নির্দিষ্ট নির্বাচনী ইস্যুও নেই তাদের হাতে।

শেয়ার করুন