চৌহাট্টা-আম্বরখানা সড়কে ফের মাইক্রোস্ট্যান্ড!

সিলেটের সকাল রিপোর্ট :: সিলেট নগরের গুরুত্বপূর্ণ চৌহাট্টা থেকে আম্বরখানা সড়কের অস্থায়ী মাইক্রোস্ট্যান্ড উচ্ছেদের একদিন পর ফের সেখানে স্ট্যান্ড বসিয়েছেন চালকেরা। তবে, এক্ষেত্রে তারা সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর কাছ থেকে অনুমতিও নিয়েছেন। মানবিক দিক বিবেচনায় তিনি ঈদুল ফিতর পর্যন্ত সেখানে ১০টি মাইক্রোবাস রাখার অনুমতি দিয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, এ সড়কের এক পাশের প্রায় আধা কিলোমিটার অংশ দখল করে অস্থায়ী মাইক্রোস্ট্যান্ড বসিয়েছেন চালকেরা। এ কারণে যান চলাচলে তৈরি হচ্ছে প্রতিবন্ধকতা, প্রতিনিয়ত দেখা দিচ্ছে যানজট। এই মাইক্রোস্ট্যান্ডটি উচ্ছেদের জন্য বেশ কয়েকবার সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু নানা কারণে তা বাধাগ্রস্ত হয়।

তবে পবিত্র মাহে রমজানে যানজট নিরসনের লক্ষে সিলেট সিটির ফুটপাত দখলমুক্ত, অবৈধ স্ট্যান্ড ও পার্কিংয়ের বিরুদ্ধে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হকের নেতৃত্বে চলমান অভিযানের অংশ হিসেবে মঙ্গলবার অবৈধ স্ট্যান্ডটি উচ্ছেদ করা হয়।

অবশেষে সরলো সেই অবৈধ মাইক্রোস্ট্যান্ড!

তবে বুধবার সকালে চালকরা আবারও সেখানে মাইক্রোবাস পার্কি করে রাখেন। খবর পেয়ে দলবল নিয়ে সেখানে ছুটে যান মেয়র আরিফ। এসময় মাইক্রোবাস চালকরা মেয়রের কাছে ঈদ পর্যন্ত অল্প সংখ্যক মাইক্রোবাস রাখার অনুমতি চান।

মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী মাইক্রোবাস চালকদের সাথে বেশ কিছু সময় কথা বলেন। চালকদের মানবিক দিক বিবেচনা করে ঈদ পর্যন্ত ওই ঐলাকায় মাত্র ১০টি মাইক্রোবাস ফুটপাতের উপর রাখার অনুমতি প্রদান করেন।

এদিকে, দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত নগরীর বন্দরবাজার, জিন্দাবাজার ও চৌহাট্টা এলাকায় অভিযানে ৪টি মোটরসাইকেল, ৩টি বাইসাইকেল এবং ফুটপাত ও রাস্তার পাশের অবৈধ ব্যবসা প্রতিষ্টান গুড়িয়ে দিয়ে বিপূল পরিমাণ মালামাল ও আসবাবপত্র জব্দ করা হয়।

এসময় সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মো. ফয়সল মাহমুদ, অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) জ্যোতির্ময় সরকার সহ বিপূল সংখ্যক পুলিশ সদস্য ও সিসিকের অন্যান্ন কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।

 

শেয়ার করুন