দক্ষিণ সুরমায় সম্পত্তি রক্ষায় প্রশাসনের সহযোগিতা চাইলেন এক মুক্তিযোদ্ধা

সিলেট প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন

সিলেটের সকাল ডেস্ক :: দক্ষিণ সুরমায় একটি চক্র ভূমি দখল পায়তারার চেষ্টা চলছে বলে অভিযোগ করেছেন উপজেলার সিলাম ইউনিয়নের শুড়িগাঁও মোহাম্মদপুর গ্রামের বাসিন্দা অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য মুক্তিযোদ্ধা নূর মিয়া। ইতিপূর্বে অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে থানা পুলিশ দখলকারীদের উচ্ছেদ করলেও পুনরায় দখলে নিতে মরিয়া হয়ে ওঠেছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

রোববার সিলেট প্রেসক্লাবের আমিনুর রশীদ চৌধুরী মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে নূর মিয়া বলেন, ‘শুড়িগাঁও গ্রামের মৃত আব্দুর রফিকের পুত্র দুদু মিয়া ও সমুজ আলী গায়ের জোরে অন্যায়ভাবে আমার স্ত্রীর নামীয় ১২ শতক ভূমি জবরদখল করে রাখে। আমার স্ত্রীর কাবিনের এই ভূমিতে তারা আধাপাকা গৃহ নির্মাণ করে নেয়। বিষয়টি আমি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ সালিশানগণের নিকট বিচারপ্রার্থী হলে তারা বৈঠকে বসে দুদুদের উক্ত ভূমি ছেড়ে দেওয়ার নির্দেশ দেন। কিন্তু তারা মুরব্বিয়ানদের সেই আদেশ মানেনি। সালিশের সিদ্ধান্ত না মানায় দুদুদের পঞ্চায়েত থেকে বাদ দেওয়া হয়। এরপরও তারা অবৈধ দখল ছাড়েনি। একপর্যায়ে আমি বাদী হয়ে এসএমপির মোগলাবাজার থানায় এবং সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্যের নিকট পৃথক পৃথক অভিযোগ দেই।’

‘অভিযোগের প্রেক্ষিতে সংসদ সদস্যের নির্দেশে মোগলাবাজার থানার তৎকালীন অফিসার মো. মুরছালিন ঘটনাস্থলে এসে ভূমি ছেড়ে দিতে দুদু ও তার সহযোগীদের নির্দেশ দেন। তখন দুদুরা পঞ্চায়েতের নিকট ভূমি সমঝিয়ে দেয়। পঞ্চায়েতগণও আমাদের ভূমি আমাদেরকে সমঝিয়ে দেন। একপর্যায়ে উক্ত ভূমিতে গৃহ নির্মাণ শুরু করলে শেষ পর্যায়ে এসে তারা আমাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে। তদন্তে এসে মোগলাবাজার থানার এসআই সাইফুল আলম কাগজপত্র দেখে আমাদের পক্ষে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন।’

তিনি বলেন, দুদু ও তার সহযোগীরা ভূমি দখলে রাখতে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শন করছে। এ অবস্থায় আমার স্ত্রী আমিনা বেগমের নামীয় ভূমিটুকু রক্ষায় পুলিশ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষে সহযোগিতা কামনা করছি। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন নূর মিয়ার স্ত্রী আমিনা বেগম, সন্তান আল আমিন ও সুহিন আহমদ।

শেয়ার করুন