উপজেলা নির্বাচনে নৌকার প্রচারণায় সাবেক অর্থমন্ত্রী মুহিত

সিলেটের সকাল রিপোর্ট :: পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দ্বিতীয় ধাপে আগামী ১৮ মার্চ সিলেটের ১২ উপজেলায় ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ‘নৌকা’র পক্ষে প্রচারণায় নেমেছেন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। বৃহস্পতিবার তিনি সিলেট সদর উপজেলা এবং বিশ্বনাথ উপজেলায় দলীয় প্রার্থীর পক্ষে ভোট চেয়ে গণসংযোগ করেন এবং পথসভায় বক্তব্য দেন। দলের বয়োজ্যেষ্ট এ নেতাকে মাঠে পেয়ে উৎফুল্ল কর্মী-সমর্থকরাও।

দুপুরে সদর উপজেলার আওয়ামী লীগের প্রার্থী আশফাক আহমদের পক্ষে পথসভায় যোগ দেন মুহিত। খাদিমনগর ইউনিয়নের বড়শালা বাজারে আয়োজিত এ পথসভায় তিনি উন্নয়নের স্বার্থে আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ‘নৌকা’য় ভোট চান। তিনি বলেন, ‘সিলেট সদরে এখনও আশফাক আহমদের প্রয়োজন রয়েছে। টানা দশ বছরে সে (আশফাক) এ উপজেলার উন্নয়নে আমার কাছে যে আবদার করেছে তা পূরণ করেছি। তার তদারকিতেই এসব উন্নয়ন হয়েছে। তাই আগামী নির্বাচনে ফের তাকে নির্বাচিত করতে হবে।’

পথসভায় বক্তব্য রাখেন সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক এমপি শফিকুর রহমান চৌধুরী, মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট রাজ উদ্দীন, যুগ্ম সম্পাদক বিজিত চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, বাফুফের কেন্দ্রীয় সদস্য মাহি উদ্দীন আহমদ সেলিম প্রমুখ।

আমাদের বিশ্বনাথ প্রতিনিধি জানান, বিশ্বনাথে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে নৌকা প্রতীকের সমর্থনে আয়োজিত নির্বাচনী পথসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন আবুল মাল আবদুল মুহিত। এসময় বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে, তাতে করে আগামী কিছু দিনের মধ্যেই বাংলাদেশ একটি রুপকল্প দেশ হিসেবে পরিণত হবে বিশ্ববাসীর কাছে। সবাইকে মনে রাখতে হবে নৌকার বিজয় মানে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বিজয়, নৌকার বিজয় মানে শেখ হাসিনার বিজয়, নৌকার বিজয় মানে স্বাধীনতা ও উন্নয়নের বিজয়। তাই বিশ্বনাথ উপজেলার উন্নয়নের স্বার্থেই আগামী ১৮ তারিখে স্বাধীনতা ও উন্নয়নের প্রতীক নৌকায় ভোট দিয়ে নুনু মিয়াকে জয়যুক্ত করুন।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব পংকি খানের সভাপতিত্বে এবং যুগ্ম সম্পাদক আমির আলী চেয়ারম্যান, মকদ্দছ আলী ও সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল আজিজ সুমনের যৌথ পরিচালনায় প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট শাহ ফরিদ উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোশাহিদ আলী, মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আবদুল খালিক, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক তপন মিত্র। এছাড়া আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী এস এম নুনু মিয়া, আওয়ামী লীগ সমর্থিত ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ও উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক আলতাব হোসেন (তালা) এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী জুলিয়া বেগমও (কলস) বক্তব্য রাখেন।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি শাহ আসাদুজ্জামান আসাদ, সমছু মিয়া, মোহাম্মদ আসাদ্দুজ্জামান, সেলিম আহমদ, যুগ্ম সম্পাদক শাহ ফয়েজ আহমদ, রামপাশা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলমগীর, উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি ছুরাব আলী, উপজেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব, উপজেলা যুবলীগ নেতা কামরুজ্জামান সেবুল, মুহিবুর রহমান সুইট, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান আতিক, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি সুহেল আহমদ মুন্না, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শীতল বৈদ্য, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক শাহ বোরহান আহমদ রুবেল, সাংগঠনিক সম্পাদক জুবায়ের আহমদ জয়, বিশ্বনাথ সরকারি কলেজ ছাত্রলীগ নেতা মিয়াদ আহমদ। সভার শুরুতে কোরআন তেলাওয়াত করেন দৌলতপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী আরিফ উল্লাহ সিতাব।

উল্লেখ্য, নবম ও দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-১ (সিটি কর্পোরেশন ও সদর) আসনে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন আবুল মাল আবদুল মুহিত। এ দুই মেয়াদেই তিনি সরকারের অর্থমন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন। গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আসনটি তার ভাই ড. এ কে আবদুল মোমেনের জন্য ছাড় দিয়ে তিনি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ান। তার ভাই নির্বাচনে বিজয়ী হলে নতুন মন্ত্রীসভায় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। আর মন্ত্রী সভা থেকে বিদায় নেওয়া আওয়ামী লীগের বয়োজ্যেষ্ট এ নেতা বর্তমানে অবসর সময় কাটাচ্ছেন।

শেয়ার করুন