লিডিং ইউনিভার্সিটিতে ছায়া জাতিসংঘ সম্মেলনের উদ্বোধন

সিলেটের সকাল ডেস্ক :: বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে লিডিং ইউনিভার্সিটি মডেল ইউনাইটেড ন্যাশনস অ্যাসোসিয়েশন (এলইউমুনা) কর্তৃক তৃতীয় বারের মতো প্রতিকি/ছায়া জাতিসংঘ সম্মেলন শুরু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৪ ফেব্রুয়ারী) বিকাল ৩টায় ‘সামাজিক সক্ষমতার মাধ্যমে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি’ এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সিলেট নগরীর কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদে ৪ দিনব্যাপী এ সম্মেলন উদ্বোধন করেন লিডিং ইউনিভার্সিটির প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. সৈয়দ রাগীব আলী।

এ সময় লিডিং ইউনিভার্সিটির উপাচার্য প্রফেসর ড. মো: কামরুজ্জামান চৌধুরী, বোর্ড অব ট্রাস্টির সদস্য সৈয়দ আব্দুল হাই, বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মেজর (অব) মো: শাহ আলম, পিএসসি, সিলেট প্রেস ক্লাবের সভাপতি ইকরামুল কবির চৌধুরী এলইউমুনার উপদেষ্ঠা তাহরিমা চৌধুরী জান্নাত, প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি নাফিজ ইবনে সোহেল এবং সেক্রেটারি জেনারেল (২০১৮-১৯) ইজাজুল হক চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।

এবারের সম্মেলনে ১৮০টিরও বেশী দেশের প্রতিনিধিত্ব করবে ৩২৫ জন প্রতিনিধি, যার মধ্যে আন্তর্জাতিক অঙ্গনের ভারত ও নেপালের রয়েছেন ১৩ জন প্রতিনিধি। এই প্রতিনিধিরা এসেছেন দেশ ও বিদেশের ৪৫টিরও বেশী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে। এ সম্মেলনে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, সামাজিক সক্ষমতা, মানবাধিকার, নারী উন্নয়নসহ বৈশ্বিক নিরাপত্তা বিধানে আলোচনা করবেন প্রতিনিধিরা।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ড. সৈয়দ রাগীব আলী বলেন, এ সম্মেলন দক্ষিণ-পূর্ব অঞ্চলকে একত্রিত করেছে। তিনি বলেন, এটি জাতিসংঘ সম্মেলনের একটি অনুরুপ অনুশীলন যার মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থী গবেষণা, বিতর্ক উপস্থাপণ এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক এবং কূটনীতি বিষয়ে শিক্ষা লাভ করতে পারবে। এর মধ্য দিয়ে সমাজে তৈরী হবে দক্ষ নেতৃত্ব। তিনি এ সম্মেলন আয়োজন করার জন্য এলইউমুনাকে ধন্যবাদ জানান এবং প্রতিযোগীরা তাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা দিয়ে নিজেদের দক্ষতার প্রমান দিবে এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে লিডিং ইউনিভার্সিটির উপাচার্য প্রফেসর ড. মো: কামরুজ্জামান চৌধুরী বলেন, এলইউমুনা গত দু’টি সম্মেলন অত্যন্ত সাফল্যের সাথে সম্মন্ন করেছে এবং এবারের এ সম্মেলন আরো ব্যাপক পরিষরে সম্মন্ন হবে। তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক মানসম্মপন্ন এ ছায়া সম্মেলনে অংশগ্রহণের ফলে প্রতিযোগীদের মধ্যে যে নেতৃত্বের জ্ঞান অর্জিত হবে তার মাধ্যমে দেশ উপকৃত হবে। এলইউমুনা তরুণ শিক্ষার্থীদের জন্যে এরকম প্ল্যাটফর্ম তৈরী করে তিচ্ছে যেখান থেকে কিছু সমাধান একটি শান্তিপূর্ণ এবং সবার অংশগ্রহণমুলক একটি সমাজব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করতে সহায়তা করবে বলে তিনি প্রত্যাশা করেন। তিনি এ ধরনের একটি মর্যাদাপূর্ণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করার জন্য এলইউমুনা এবং অংশগ্রহণকারী প্রত্যেক ডেলিগেট্স এবং অতিথিবৃন্দকে ধন্যবাদ জানান।

শেয়ার করুন