পুরনো কারাগার এখন ‘সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার-২’


সিলেটের পুরনো কারাগার এখন সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার-২

সিলেটের সকাল রিপোর্ট: নগরীর ধোপাদিঘীরপাড়স্থ পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগার এখন ‘সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার-২’। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার মো: আব্দুল জলিল।

শুক্রবার কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে বন্দি স্থানান্তর শুরুর সাথে সাথে কারাগারের প্রধান ফটকে সাটানো হয় একটি ব্যানার। যাতে লেখা রয়েছে ‘সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার-২’।

সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে সিনিয়র জেল সুপার আব্দুল জলিল জানান, পুরনো সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার যেমন আছে, তেমনই থাকছে। এখানেও কার্যক্রম চলমান থাকবে।

তিনি বলেন, পুরনো কারাগারকে ‘গ্রিণ পার্ক’ করার ব্যাপারে সদ্য প্রাক্তণ অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত ডিও লেটার (ডেমি অফিস লেটার-আধা সরকারিপত্র) প্রেরণ করলেও প্রধানমন্ত্রী এতে সম্মতি দেননি।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আপাতত সকল বন্দি বাদাঘাট কারাগারেই স্থানান্তর করা হয়েছে। তিনি বলেন, সিলেটসহ দেশে ৫টি পুরাতন কারাগারে নতুন জনবল ও অফিস সরঞ্জামাদির অনুমোদনের জন্য প্রস্তাব প্রেরণে একটি কমিটি করা হয়েছে। জনবল নিয়োগ দেওয়ার পর পুরাতন কারাগারে বন্দি রাখা হবে। সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের পদ ৪৫৫টি। এর মধ্যে কর্মরত আছেন ৩৯৯জন। জনবল সৃজনের পর দুটি কারাগারই যথারীতি চলবে।

তৎকালীন কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দীনের স্বাক্ষরে ২০১৮ সালের ১৮ অক্টোবর একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে কারা অধিদপ্তর। ওই স্মারকে (নম্বর ৫৮.০৪.০০০০.০২২.১২.০৪০.১৮-৭৭৯) উল্লেখ করা হয়, ‘দেশের বিভিন্ন কারাগারে আটক বন্দিদের বর্তমান সংখ্যাধিক্য, ক্রমবর্ধমান বন্দি সংখ্যা এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রদত্ত অনুশাসন অনুযায়ী কারা বন্দিদের আত্মকর্মসংস্থানমূলক প্রশিক্ষণ প্রদান করে দক্ষ জনশক্তিতে পরিণত করার মাধ্যমে কারাগারসমুহকে সংশোধনাগার করার জন্য সদাশয় সরকার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগ কারা-১ শাখার প্রজ্ঞাপনে সিলেট, ফেনি, মাদারীপুর, পিরোজপুর ও কিশোরগঞ্জ কেন্দ্রীয়/জেলা কারাগার নতুনভাবে নির্মিত হয়েছে। সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এই ৫টি কারাগারে নতুন জনবল সৃজন ও অফিস সরঞ্জামাদির জন্য একটি কমিটি গঠনও করে দেয়া হয়।’

শেয়ার করুন