জুনায়েদের ব্যাটে বড় সংগ্রহ খুলনার

মিজান আহমদ চৌধুরী, স্টেডিয়াম থেকে : আগের ম্যাচে জয় পাওয়ার পর এই ম্যাচেও জয় পেতে মরিয়া খুলনা। কারণ পয়েন্ট টেবিলে খুব একটা ভালো অবস্থায় নেই মাহমুদউল্লাহরা। টস জিতে প্রথমে কুমিল্লা অধিনায়ক ইমরুল কায়েস খুলনাকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রন জানান।প্রথমে ব্যাট করে জুনায়েদের ৭০ রানের উপর ভর করে কুমিল্লাকে ১৮২ রানের টার্গেট দিয়েছে খুলনা।

বিপিএলে টস হারলেও ঝড়ো সূচনা করে খুলনা টাইটান্স। যদিও প্রথম ওভারের চতুর্থ বলে সাইফুদ্দিনের বলে রানের খাতা খোলার আগেই ফেরেন জহুরুল ইসলাম। তবে প্রথম উইকেট পতনের পর পর হাত খুলে খেলতে থাকেন জুনায়েদ ও আল আমিন। ডেভিড উইজের বদলে আজকে খেলতে নেমে সুযোগের পুরোপুরি সদ্ব্যবহার করেন আল আমিন। তার সঙ্গে যোগ দেন জুনায়েদ। দুজনেই ঝড়ো ব্যাটিং বজায় রাখেন পাওয়ার প্লেতে। ৬ ওভারে ১ উইকেটের বিনিময়ে ৬৫ রান তুলে টাইটান্সরা।দলীয় ৭৩ রানে আল আমিনকে শহীদ আফ্রিদি বোল্ড করলে ভাঙ্গে দ্বিতীয় উইকেট ৭১ রানের জুটি। তিনি ১৯ বলে ৩২ রানের দৃষ্টিনন্দন ইনিংস উপহার দেন দর্শকদের।

তবে আল আমিন ফিরে গেলে ও অন্য প্রান্তে অবিচল ছিলেন জুনায়েদ। পার টাইম স্পিনার শামসুর রহমানকে ওভার বাউন্ডারি মেরে ৩০ বলে নিজের টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের চতুর্থ ফিফটি তুলে নেন। অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ ক্রিজে নেমে শুরু থেকে মারমুখি ছিলেন। দুটি ছক্কার সাহায্যে ৯ বলে ১৬ রান করে তাকে প্যাভিলিয়নে ফিরিয়ে ম্যাচে নিজের দ্বিতীয় উইকেট শিকার করেন আফ্রিদি। চতুর্থ উইকেট জুটিতে মালানকে সঙ্গি করে জুনায়েদ গড়েন ৫০ রানরে জুটি। দলীয় ১৪৫ রানের মাথায় ৪১ বলে ৭০ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলে রান আউটে কাঁটা পড়েন জুনায়েদ সিদ্দিক। তার ৭০ রানের ইনিংসে ৪ টি ওভার বাউন্ডারির সাথে ৪টি বাউন্ডারির মার ছিলো।শেষ দিকে মালান ২৯, ব্র্যাথওয়েট ১২ ও আরিফুল ১৩ রান করলে ২০ ওভার শেষে ৭ উইকেটের বিনিময়ে ১৮১ করে খুলনা টাইটান্স।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের হয়ে আফ্রিদি ৩টি ,রিয়াজ ২টি ও সাইফুদ্দিন ১টি করে উইকেট লাভ করেন।

দুই দলের মধ্যে বেশ সুবিধাজনক অবস্থানে আছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। পাঁচ ম্যাচ খেলে এখন পর্যন্ত ৩টিই জিতেছে তারা, হেরেছে ২টিতে। সবমিলিয়ে ৬ পয়েন্ট নিয়ে তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে আছে ইমরুল কায়েসের দল।

আর টুর্নামেন্টে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা খুলনা টাইটান্সের। ৫ ম্যাচ খেলে এখন পর্যন্ত মাত্র ১টিতে জয় পেয়েছে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল, হেরেছে ৪টিই।

২ পয়েন্ট নিয়ে খুলনা টাইটান্স আছে পয়েন্ট তালিকার একেবারে তলানিতে। একটি জয়ই হয়তো তাদের হারানো আত্মবিশ্বাস ফিরিয়ে আনতে পারে।

খুলনা একাদশ: মাহমুদউল্লাহ (অধিনায়ক), জুনায়েদ সিদ্দিক, ডেভিড মালান, নাজমুল হোসেন শান্ত, আরিফুল হক, কার্লোস ব্র্যাথওয়েট, তাইজুল ইসলাম, লাসিথ মালিঙ্গা, জুনায়েদ খান, জহুরুল ইসলাম ও আল আমিন।

কুমিল্লা একাদশ: ইমরুল কায়েস (অধিনায়ক), এনামুল হক, তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, থিসারা পেরেরা, শামসুর রহমান, শহীদ আফ্রিদি, লিয়াম ডসন, ওয়াহাব রিয়াজ, মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন, মেহেদী হাসান ও জিয়াউর রহমান।

 

 

 

শেয়ার করুন