কানাইঘাটে বিজিবির দুই মামলায় আসামী শতাধিক, নিহত কিশোরের দাফন সম্পন্ন

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: সিলেটের কানাইঘাটের সুরইঘাট সীমান্তের সনাতনপুঞ্জি এলাকায় বিজিবির ওপর চোরাকারবারীদের হামলা ও গোলাগুলিতে কিশোর নিহতের ঘটনায় দুটি মামলা দায়ের হয়েছে।

মঙ্গলবার সুরইঘাট বিওপির কমান্ডার সুরত সুবেদার সুরত আলী বাদি হয়ে থানায় মামলা দুটি দায়ের করেন। মামলায় ১১ জনের নাম উল্লেখসহ শতাধিক জনকে আসামী করা হয়েছে।

কানাইঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) নুনু মিয়া মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ‘মালামাল আটকের জন্য বিশেষ ক্ষমতা আইনে একটি (নং-১৬) ও বিজিবির ওপর হামলার ঘটনায় একটি (নং-১৭) মামলা দায়ের হয়েছে।’

এদিকে ওই ঘটনার সময় গোলাগুলিতে নিহত কিশোর সিরাজ উদ্দিনের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। মঙ্গলবার ময়নাতদন্ত শেষে বিকেলে তার পরিবারের সদস্যরা মরদেহ নিয়ে সনাতনপুঞ্জি গ্রামে পৌঁছান। পরে মাগরিবের নামাজ শেষে জানাযার পর গ্রামের পঞ্চায়েত করবস্থানে তার দাফন সম্পন্ন হয়।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ৪ ভাই ৫ বোনের মধ্যে নিহত কিশোর সিরাজ ছিল সবার ছোট। সিরাজ স্থানীয় সোনাতনপুঞ্জি রেজিষ্টার বে-সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্র।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, তার বড় ভাই ইসলাম উদ্দিনের সাথে কথা হলে তিনি ঘটনার সুষ্টু তদন্তের মাধ্যমে তার ভাই হত্যার বিচার দাবী করেন। এ সময় প্রতিবেশী সামছুল হক, আব্দুল হান্নান, আব্দুল মালিক, ফারুক আহমদ ও কুতুব উদ্দিন জানান এ ঘটনায় নিহত কিশোর ছিল একেবারে নির্দোষ। ওইদিন সন্ধ্যায় সে স্থানীয় সুরইঘাট বাজার থেকে বাজারের খরচ করে বাড়িতে ফিরছিল, কিন্তু পথিমধ্যে বিজিবি’র গুলিতে সে নিহত হয়।

উল্লেখ্য, সোমবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে সুরাইঘাট বিজিবি ক্যাম্পের একদল জোয়ান সীমান্তবর্তী সোনাতনপুঞ্জি গ্রাম দিয়ে ভারত থেকে অবৈধ ভাবে বাংলাদেশে নিয়ে আসা একটি বিদেশী সিগারেটের চালান আটক করে। এ সময় চোরাকারবারীরা আটককৃত সিগারেট বিজিবি’র কাছ থেকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করলে বিজিবি’র সাথে চোরা কারবারীদের সংঘর্ষ হয়।

এতে বিজিবির ৩ সদস্য চোরাকারবারীদের হামলায় আহত হলে আত্মরক্ষার্থে বিজিবি গুলি ছুড়লে উপজেলার লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউপি’র সোনাতনপুঞ্জি গ্রামের আব্দুল মুতলিবের পুত্র পথচারী কিশোর সিরাজ উদ্দিনের মাথায় গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন।

এ ঘটনার খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক হাসপাতালে ছুটে যান উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) লুসিকান্ত হাজং। ঘটনার রাতেই থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুল আহাদ, ওসি (তদন্ত) নুনু মিয়া ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এছাড়াও বিজিবি’র সিলেটের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন বলে জানা গেছে।

শেয়ার করুন