বড়লেখার সেই শিশুর লাশ উত্তোলন বৃহস্পতিবার ॥ গ্রেফতার ২

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি ॥ পরিবহন ধর্মঘট চলাকালে মৌলভীবাজারের বড়লেখায় নিহত সাত দিন বয়সী শিশু কন্যার লাশ ময়না তদন্তের জন্য বৃহস্পতিবার কবর থেকে উত্তোলন করা হবে। বড়লেখা আদালতের নির্দেশে লাশটি কবর থেকে উত্তোলন করা হচ্ছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বড়লেখা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জসিম উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
তিনি জানান, এ ঘটনায় উপজেলার মহদিকোনা গ্রামের হবীব আলীর ছেলে আলীম উদ্দিন (৪৮) এবং একই এলাকার জহির উদ্দিনের ছেলে জাকির হোসেন রাজনকে (২৪) পুলিশ গ্রেফতার করেছে। এর মধ্যে গত সোমবার আব্দুল আলীমকে এবং মঙ্গলবার জাকির হোসেন রাজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের দুজনকেই আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলে জানান আইও।
বড়লেখা উপজেলার সদর ইউনিয়নের অজমির গ্রামের কুটন মিয়ার মেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়লে ২৮ অক্টোবর সকালের দিকে বড়লেখা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে বড়লেখা উপজেলার পুরাতন বড়লেখা বাজার, দাসেরবাজারসহ বিভিন্ন স্থানে অ্যাম্বুলেন্সটি পরিবহন শ্রমিকদের বাধার মুখে পড়ে। অ্যাম্বুলেন্সটি চান্দগ্রাম নামক স্থানে গেলে পরিবহন শ্রমিকরা গাড়ি আটকে চালককে মারধর করেন। প্রায় দেড়ঘণ্টা এখানে অ্যাম্বুলেন্সটি আটকা থাকে। অ্যাম্বুলেন্স আটকা অবস্থায় শিশুটি মারা যায়। দুপুর দেড়টার দিকে গাড়ি ছাড়া পেলে শিশুটিকে পাশের সিলেট জেলার বিয়ানীবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশুটিকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনার সংবাদ বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলে সারাদেশে শুরু হয় তোলপাড়। শিশুর মৃত্যুর জন্য দায়ীদের খুঁজে বের করতে ৩১ অক্টোবর দুপুরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দেন উচ্চ আদালত। ৩১ অক্টোবর ওই শিশুর চাচা আকবর আলী বাদী হয়ে অজ্ঞাত পরিচয়ে ১৬০ থেকে ১৭০ জনকে আসামি করে বড়লেখা থানায় একটি মামলা করেন। মামলা নম্বর-১৮।
এদিকে শিশুটির মৃত্যুর ঘটনায় তার পরিবারকে ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ কেন দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। জনস্বার্থে দায়ের করা এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে গত সোমবার (০৩ ডিসেম্বর) বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি মো. আশরাফুল কামালের হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ এ আদেশ দেন। ১০ জানুয়ারির মধ্যে পুলিশের মহাপরিদর্শককে (আইজিপি) ওই শিশুর মৃত্যুর ঘটনায় মেডিকেল সার্টিফিকেটসহ প্রয়োজনীয় তথ্য আদালতে প্রতিবেদন আকারে দাখিল করতে নির্দেশ দেওয়া হয়।

শেয়ার করুন