দিনের প্রথম ঘন্টায় ফিরলেন লিটন-মুমিনুল

মিজান আহমদ চৌধুরী, স্টেডিয়াম থেকে : টেস্ট ম্যাচের জন্য দিনের প্রথম ঘণ্টা খুব গুরুত্বপূর্ণ। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বিশাল রান তাড়া করে জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে আজ মঙ্গলবার দিনের শুরুতে উইকেট হারাল বাংলাদেশ। সিকান্দার রাজার স্পিনে এলবিডব্লিউ হয়ে গেছেন লিটন দাস (২৩)। ভাঙল ৫৬ রানের ওপেনিং জুটি। তবে তখন বাংলাদেশর হয়ে ক্রিজে ছিলেন উমরুল কায়েস ও মুমিনুল হক । তাদের ব্যাটে বাংলাদেশ যখন একটি ভালো পার্টনারশীপ দেখছিলো তখন মুমিনুল (৯) নিজের উইকেট এক প্রকার উপহার দিয়ে আসে প্রতিপক্ষে বোলার জার্ভিসকে।
বাংলাদেশের জয়ের জন্য এই মুহূর্তে প্রয়োজন ২৫৪ রান।

এর আগে বিনা উইকেটে ২৬ রান তুলে তৃতীয় দিন শেষ করেছিল বাংলাদেশ। সিলেট টেস্ট জিততে হলে বাংলাদেশকে করতে হবে ৩২১ রান। টেস্টে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ জয় ২১৫ রানের লক্ষ্য তাড়া করে। ২০০৯ সালের জুলাইয়ে সেইন্ট জর্জে স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে এই রান চেজ করে ৪ উইকেটে জিতেছিল মুশফিকুর রহিমের দল।

গতকাল সোমবার তাইজুল-মিরাজ-অপুদের ঘূর্ণিতে ১৮১ রানে জিম্বাবুয়ের দ্বিতীয় ইনিংস শেষ হয়। সর্বোচ্চ ৪৮ রান করেন অধিনায়ক মাসাকাদজা। ম্যাচে দ্বিতীয়বারের মতো পাঁচ উইকেট নেন তাইজুল। এতে বাংলাদেশের চতুর্থ বোলার হিসেবে টেস্টে নূন্যতম ১০ উইকেট পাওয়া হয়ে যায় তার। ৩ উইকেট নেন মিরাজ এবং দুটি নেন নাজমুল অপু। বাংলাদেশের সামনে টার্গেট দাঁড়ায় ৩২১ রানের।
এর আগে প্রথম ইনিংসে ২৮২ রানে অল-আউট হয় জিম্বাবুয়ে। বাংলাদেশের হয়ে ৬ উইকেট নেন তাইজুল। কিন্ত নিজেদের প্রথম ইনিংসে চরম ব্যর্থতার পরিচয় দেয় স্বাগতিক ব্যাটসম্যানরা। দ্বিতীয় দিনে দেড় সেশনেই অল-আউট হয় মাত্র ১৪১ রানে। অভিষিক্ত আরিফুল হক ৭ নম্বরে নেমে সর্বোচ্চ ৪১* রান করেন। ১৩৯ রানের লিড নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করে জিম্বাবুয়ে।

বাংলাদেশ একাদশ: মাহমুদউল¬াহ, ইমরুল কায়েস, লিটন দাস, মুমিনুল হক, মুশফিকুর রহিম, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, আবু জায়েদ চৌধুরী, আরিফুল হক, নাজমুল হোসেন শান্ত, নাজমুল ইসলাম অপু।

জিম্বাবুয়েএকাদশ : হ্যামিল্টন মাসাকাদজা (অধিনায়ক), ব্রায়ান চেরি, ব্রেন্ডন টেইলর, শন উইলিয়ামস, সিকান্দার রাজা, পিটার মুর, রেগিস চাকাভা, কাইল জার্ভিস, ব্রেন্ডন মাভুতা, ওয়েলিংটন মাসাকাদজা, তেন্দাই চাতারা।

শেয়ার করুন