তাইজুলের ১১ উইকেট

স্পোর্টস রিপোর্টার : জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেই ইনিংসে ৮ উইকেট নেয়ার কীর্তিও ছিল তাইজুল ইসলামের। সেই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেই ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো কোনো টেস্টে ১১ উইকেট নিলেন তাইজুল। সিকান্দার রাজাকে বোল্ড করে নতুন কীর্তি গড়ার সঙ্গে ম্যাচে প্রাণ ফিরে পাচ্ছে বাংলাদেশও।

আগের ওভারের শেষ দুই বলে উইকেট নিয়েছিলেন তাইজুল। পরের ওভারের প্রথম বল ডিফেন্স করে বাঁ-হাতি স্পিনারের হ্যাটট্রিক ঠেকিয়ে দেন রাজা। এক বল পরেই তার উইকেট তুলে নেন। পরিষ্কার বোল্ড হন রাজা।

১৫৮ রানে ষষ্ঠ উইকেট হারালেও সফরকারীদের লিড হয়ে গেছে ২৯৭ রান। বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস শেষ হয় ১৪৩ রানে। প্রথম ইনিংসে জিম্বাবুয়ে করে ২৮২ রান।

প্রথম ইনিংসে ৬ উইকেট নেন তাইজুল। দ্বিতীয় ইনিংসে এখন পর্যন্ত ৪ উইকেট নিয়েছেন পরপর দুই বলে উইকেট নেন তাইজুল। শন উইলিয়ামসকে বোল্ড করার পর পিটার মুরকেও ফেরান খাতা খোলার আগে। হ্যামিল্টন মাসাকাদজার পর উইকেট বিলিয়ে দেন শন উইলিয়ামসও। তাইজুল ইসলামকে রিভার্স সুইপ করতে গিয়ে ফিরেন বোল্ড হয়ে।

নিজের অভিষেক টেস্ট ইনিংসে তাইজুল ইসলাম নিয়েছিলেন পাঁচ উইকেট। তাইজুল প্রথম ৫ উইকেট শিকার করেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে। এরপর আর দুই বার পান ৫ উইকেটের দেখা। আছে তার। তিন বছর ধরে ৫ উইকেটের দেখা আর মিলছিল না। ফেব্রুয়ারিতে ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সবশেষ সিরিজে তাইজুল তিনবার পেয়েছিলেন ৪টি করে উইকেট।

ক্রিজে সেট হয়ে গিয়েছিলেন মাসাকাদজা। কিন্তু উইকেট নিজেই উপহার দিয়ে ফিরেন জিস্বাবুয়ে অধিনায়ক। মেহেদী হাসান মিরাজকে রিভার্স সুইপ করতে যান মাসাকাদজা। কিন্তু লাইন মিস করেন পুরোপুরি। বল লাগে পায়ে, এলবিডব্লিউয়ের আবেদনে সাড়া দিতে খুব সময় নেননি আম্পায়ার। ৪৮ রান করেন মাসাকাদজা।

সোমবার সকালে জিম্বাবুয়ের দুই উইকেট তুলে বাংলাদেশ। ম্যাচের তৃতীয় দিন বাংলাদেশকে উইকেট এনে দেন মেহেদী হাসান মিরাজ। জিম্বাবুয়ের দলীয় স্কোর যখন ১৯, তখন ব্রায়ান চারিকে পরিষ্কার বোল্ড করেন ডানহাতি এই স্পিনার। ধীর স্থির ব্যাটিং করা চারি ৩৩ বলে করতে পারেন ৪ রান।

তবে ক্রিজে নেমেই রান বাড়ানোর দিকে নজর দেন ব্রেন্ডন টেলর। বেশ চালিয়ে খেলছিলেন তিনি। ২৫ বলে ২৪ রান করে টেলর যখন বিপজ্জনক হয়ে উঠছিলেন তখন তাকে থামান তাইজুল ইসলাম। দলীয় ৪৭ রানের সময় ইমরুল কায়েসের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন জিম্বাবুয়ের উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান।

শেয়ার করুন