ফিলিস্তিনের জয়ে পর্দা নামলো সিলেট পর্বের

মিজান আহমদ চৌধুরী, সিলেট জেলা স্টেডিয়াম থেকে : বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবলে ‘এ’ গ্রুপের সব জটিল সমিকরণ সহজ করে দিলো নেপাল। মূলত ফিলিস্তিনের কাছে ১-০ গোলে হেরে যাওয়ায় গ্রুপের কোন সমিকরণ সামনে আসেনি। যদি নেপাল এ ম্যাচে ২-০ গোলে জিতে যেত তাহলে গ্রুপের সব দলের খেলা, জয় পরাজয় এবং গোল পার্থক্য সমান হয়ে যেত। তবে সেটি আর হয়নি।

‘এ’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হিসেবে ১০ অক্টোবর কক্সবাজারে দ্বিতীয় সেমিতে স্বাগতিক বাংলাদেশের মুখোমুখি হবে ফিলিস্তিন। অন্যদিকে প্রথম সেমিতে এর আগে ৯ অক্টোবর তািজকিস্তান মুখোমুখি হবে বি গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন ফিলিপাইন।

এদিকে ফিলিস্তিন ও নেপালের ম্যাচের মধ্য দিয়ে পর্দা নামলো বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবলে টুর্নামেন্টর সিলেট পর্বের। সিলেট পর্বে দর্শকের উন্মাদনা ছিলো প্রতিটি ম্যাচে। স্বাগতিক বাংলাদেশ সহ অন্যান্য ম্যাচেও দর্শকদের আগ্রহ ছিলো ব্যাপক।
শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে নেপাল এবং ফিলিস্তিন ম্যাচটি শুরু হয়। সেমি নিশ্চিতের ম্যাচে দু’দল যেমন ভাবে গোল আদায়ের জন্য মরিয়া হয়ে খেলার কথা দু’দল তেমন ভাবে খেলতে পারেনি। তবে প্রথমাধে ফিলিস্তিন বেশ কয়েকটি আক্রমণ করেছে প্রতিপক্ষে নেপালের দুর্গে। তবে তাদের সেই আক্রমণ থেকে ফল আসেনি।ম্যাচের ১৬ মিনিটে প্রথমে প্রথম আক্রমণে যায় ফিলিস্তিন । মুসা আলীর পেনাল্টি বক্সের বেতর থেকে নেওয়া শটেটি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়।
ম্যাচে ২২ মিনিটে আবারও আক্রমণে ফিলিস্তিস। সর্তীথদের কাছে থেকে বল পেয়ে হেড করেন ফরোয়ার্ড খালেদ।তবে সেই হেড থেকে দলকে তিনি লিড এনে দিতে পারেননি।
৩১ মিনিটে হেলালের পাসে গোল পোস্ট লক্ষ্য করে শট করেন সামেহ মারাবা। তবে তা নেপালের গোল রক্ষক বিকাশ দক্ষতার সাথে প্রতিহত করেন।
ফিলিস্তিনের একের পর এক আক্রমণ প্রতিহত নিয়ে নেপালের রক্ষণ ভাগ ব্যাস্ত ছিলো।তবে প্রথমার্ধের ৩৪ মিনিটে আক্রমণে যায় নেপাল। বক্সের ভেতর থেকে বিমলের নেওয়া শটটি থেকে দলকে এগিয়ে নিতে পারেননি তিনি।
গোল শূণ্য সমতা নিয়ে দু’দল বিরতিতে যায়।

বিরতি থেকে ফিরে এসে গোলের জন্য মরিয়া হয়ে উঠে ফিলিস্তিন। ম্যাচের ৫১ মিনিটে প্রতিপক্ষের বিপদসীমায় হানা দেয় ইসলাম বাটরান। তবে তা কর্ণারের বিনিময়ে রক্ষা করেন নেপালের গোল রক্ষক।
৫৯ মিনিটে ফিলিস্তিনের মিড ফিল্ডার আদ্বুল্লাহ জাবেরের সেট পিছ থেকে হেডের মাধ্যমে গোল আদার করতে ব্যর্থ হন সামেহ মারাবাহ।
তবে ম্যাচের ৭০ মিনিটে গোল আদানে কোন ধরণের ভ’ল করেনি ফিলিস্তিন। আব্দুল্লাহ্র মাইনাস থেকে খালেদ সালেমের হেডে ম্যাচে একমাত্র গোল আসে।
তবে ম্যাচের ৮৩ মিনি ও ৯০ মিনিটে আরোও দুটি সুযোগ নষ্ট না করলে আরো বড় ব্যবধানে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে পারতো ফিলিস্তিন।

শেয়ার করুন