স্ত্রীর দাফনে অংশ নিতে প্যারোলে মুক্ত নওয়াজ

সিলেটের সকাল ডেস্ক:: কারারুদ্ধ পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ স্ত্রীর দাফনে অংশ নিতে ১২ ঘন্টার জন্য প্যারোলে মুক্তি পেয়েছেন। একই সময়ের জন্য প্যারোলে মুক্তি পাবেন নওয়াজ কন্যা মরিয়ম এবং তার স্বামী সফদর।

তাদের প্যারোলে মুক্তির বিষয়টি পাঞ্জাবের প্রাদেশিক প্রশাসনের এক বিবৃতিতে নিশ্চিত করা হয়েছে। তবে অবস্থা বিবেচনা করে পাকিস্তান আইন অনুযায়ী এ সময় ৭২ ঘন্টা পর্যন্ত বৃদ্ধি করা যেতে পারে। খবর এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের।

মঙ্গলবার (১১ সেপ্টেম্বর) লন্ডনের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন নওয়াজ শরিফের স্ত্রী কুলসুম নওয়াজ। ২০১৭ সালের জুন মাস থেকে লন্ডনের হার্লে স্ট্রিট ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন ছিলেন কুলসুম।

বৃহস্পতিবার কুলসুমের মৃতদেহ লাহোরে পৌঁছবে। শুক্রবার বাদ জুমা জানাযা শেষে লাহোরের রাইওয়ান্ডের জাতি উমরায় শরিফ পরিবারের পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

কুলসুম নওয়াজ ও নওয়াজ শরিফ দম্পতির চার সন্তান- হাসান, হুসাইন, মরিয়ম এবং আসমা বেঁচে আছেন।

গত বছরের আগস্টে লিম্পোমা’তে আক্রান্ত হন তিনি। ক্যানসারের প্রথম ধাপেই এই রোগ ধরা পড়ার পর থেকেই লন্ডনে চিকিৎসা নিচ্ছেন তিনি। এরপর তার কয়েক বার অস্ত্রোপচার এবং কমপক্ষে পাঁচ বার কেমোথেরাপি দেয়া হয়।

চলতি বছরের জুনে তার হ্যার্ট অ্যাটাক হয় এবং ভেন্টিলেটরে পাঠানো হয়। ১২ জুলাই তার স্বাস্থ্যের অবস্থা একটু উন্নত হয় বলে তার পরিবার জানায়।

দুর্নীতির দায়ে ৬ জুলাই নওয়াজ শরিফকে ১০ বছরের কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তার মেয়ে মরিয়ম নওয়াজকে ৭ বছর কারাদণ্ডাদেশ দেন আদালত। তারা উভয়ই এখন রাওয়ালপিন্ডি আদিয়ালা কারাগারে কারাদণ্ড ভোগ করছেন।

কুলসুম কাশ্মিরি পরিবারে ১৯৫০ সালে লাহোরে জন্মগ্রহণ করেন। ইসলামিয়া কলেজে পড়াশোনা করেন এবং লাহোরের ফরম্যান খ্রিষ্টান কলেজ থেকে স্নাতক পাস করেন। ১৯৭০ সালে পাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উর্দু বিষয়ে মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেন তিনি। একই বছর নওয়াজ শরিফকে বিয়ে করেন।

শেয়ার করুন